সংখ্যায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা লড়াই

সংখ্যায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা লড়াই

ক্রিকেটে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে এশিয়া কাপ ২০১৮ এর পর্দা উঠছে আজ। মরুর দেশে আরব আমিরাতে উদ্বোধনী ম্যাচেই শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি বাংলাদেশ। নিকট অতীতেই এই দুই দলের ঝাঁজালো প্রতিদ্বন্দ্বিতার কিছু তাজা স্মৃতি রয়েছে। বিকেল সাড়ে ৫টায় মুখোমুখি হচ্ছে এ দু’দল। এর আগে চলুন ওয়ানডেতে এই দুই দলের পরিসংখ্যানের পাতা উল্টে আসি-

হেড টু হেড
আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচে এখনো পর্যন্ত ৪৪ বার মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা। এর মধ্যে ৬ ম্যাচে বাংলাদেশ আর ৩৬ ম্যাচে জয়ের দেখা পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। দুটি ম্যাচ ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছিল।

এশিয়া কাপে হেড টু হেড
এশিয়ান শ্রেষ্ঠত্বের এ লড়াইয়ে ১২ বার দেখা হয়েছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার। এর মধ্যে ১১ বার জয় পেয়েছে লঙ্কানরা। ২০১২ সালে এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি ম্যাচে জয় পায় বাংলাদেশ।

সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন স্কোর
ওয়ানডেতে এক ইনিংসে বাংলাদেশের ৫ উইকেটে ৩২৪ রানের ইনিংসটাই এখনো পর্যন্ত সর্বোচ্চ। অন্য দিকে বাংলাদেশের বিপক্ষে এক ইনিংসে ৯ উইকেটে সর্বোচ্চ ৩৫৭ রানের ইনিংস খেলেছে শ্রীলঙ্কা। ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার সর্বনিম্ন স্কোর ১৪৭ রান। অন্যদিকে বাংলাদেশের সর্বনিম্ন ইনিংস ৭৬ রানের।

সেরা ৫ রান স্কোরার
ওয়ানডে লড়াইয়ে দুই দলের মধ্যকার শীর্ষ পাঁচজন রান সংগ্রাহকের মধ্যে চারজনই শ্রীলঙ্কার। এর মধ্যে কুমার সাঙ্গাকারা, সনাৎ জয়াসুরিয়া, উপুল থারাঙ্গা, তিলকারত্নে দিলশান রয়েছেন। পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ দলের সেরা ওপেনার  তামিম ইকবাল। তামিমের সংগ্রহে রয়েছে ৬৪৩ রান।

সবচেয়ে বেশি ফিফটি
বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা মধ্যকার ওয়ানডে ম্যাচে সবচেয়ে বেশি ফিফটি হাঁকানোর রেকর্ড রয়েছে কুমার সাঙ্গাকারার। বাংলাদেশে বিপক্ষে ১১টি অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন কিংবদন্তি এ ব্যাটসম্যান।

শীর্ষ ৫ উইকেট শিকারি:
এ তালিকায়ও রাজত্ব লঙ্কানদের। ৫ জনের মধ্যে যথারীতি তিনজনই লঙ্কান। ৩১ উইকেট নিয়ে শীর্ষে মুত্তিয়া মুরালিধরন, ২৪ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা। এরপরের দুই অবস্থানে আবারও জায়গা করে নিয়েছেন লঙ্কান দুই বোলার। ২২উইকেট নিয়ে ফার্নান্ডো তালিকার তিনে ও সমান ২০ উইকেট নিয়ে এর পরবর্তী দুই অবস্থানে রয়েছেন লাসিথ মালিঙ্গা ও বাংলাদেশের রুবেল হোসেন।

ইনিংসে ৫ উইকেট:
দু’দলের মধ্যকার ওয়ানডে লড়াইয়ে এখনো পর্যন্ত মোট তিনজন বোলার ইনিংসে পাঁচ উইকেট শিকার করার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন। যার মধ্যে দুই লঙ্কান বোলার চামিন্দা ভাস ও মুত্তিয়া মুরালিধরনের সাথে একমাত্র বাংলাদেশি বোলার হিসেবে রয়েছেন স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক।

এক সিরিজে সর্বোচ্চ উইকেট:
ওয়ানডে লড়াইয়ে দু’দলের মধ্যকার সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকারের অর্জনটি জয়াসুরিয়ার। ২০০৭ সালে এক সিরিজে সর্বাধিক ৯ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব গড়েন তিনি।

সবচেয়ে বেশি ক্যাচ:
ফিল্ডারদের মধ্যে দু’দলের লড়াইয়ে সবচেয়ে বেশি ক্যাচ তালুবন্দী করার নজির স্থাপন করেছেন শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাহেলা জয়াবর্ধনে। অবসর নেওয়ার আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে ২৬ ম্যাচ খেলে মোট ১৮টি ক্যাচ নেন তিনি।

সবচেয়ে বেশি ম্যাচ:
ওয়ানডে ফরম্যাটে এই দুই দলের লড়াইয়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ম্যাচে মাঠে দেখা গেছে কুমার সাঙ্গাকারাকে। মোট ৩১টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি বাংলাদেশের বিপক্ষে। তাছাড়া বাংলাদেশের পক্ষে লঙ্কানদের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ২৬টি করে ম্যাচ খেলেছেন মোহাম্মদ আশরাফুল ও মুশফিকুর রহিম।

সর্বাধিক ডিসমিসাল:
উইকেট রক্ষকদের এই লড়াইয়ে সবাইকে ছাপিয়ে শীর্ষে অবস্থান কুমার সাঙ্গাকারার। ৩১ ম্যাচ থেকে ৪৩ ক্যাচ ও ৬ স্টাম্পিংয়ে মোট ৪৯ ডিসমিসালার তার দখলে। এরপর পরবর্তী অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিম। তার ঝুলিতে রয়েছে ১৯টি ক্যাচ ও ২টি স্টাম্পিংসহ মোট ২১টি ডিসমিসাল।