সাকিব-তামিমের অমন ব্যাটিংই চেয়েছিল দল

সাকিব-তামিমের অমন ব্যাটিংই চেয়েছিল দল

প্রথম ওয়ানডেতে ধীরগতির ব্যাটিংয়ের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশ সমালোচিত হয়েছেন সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল। তবে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা জানালেন, দুজন দলের চাওয়া মতোই ব্যাটিং করেছেন।

রোববার গায়ানার উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য মোটেই সহজ ছিল না। উইকেট ছিল মন্থর, বল ব্যাটে আসছিল দেরিতে। শুরুর দিকে তাই বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে তামিম, সাকিবকে। তারমধ্যে আবার ১ রানেই এনামুল হক বিজয়ের উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। বৃষ্টিতে মিনিট বিশেক খেলা বন্ধও ছিল।

এরপরই সাকিব-তামিমের লড়াই শুরু। দুজন গড়েন রেকর্ড ২০৭ রানের জুটি। কিন্তু এই জুটির শেষ ৯.৩ ওভারে কোনো বাউন্ডারি আসেনি। শুরুর দিকের মতো ৪০ থেকে ৪৫ ওভারে তাদের ব্যাটিং হয়ে গিয়েছিল ধীরগতির। দুজনের রানই তখন ৯০-এর ঘরে। সাকিব ৪৫তম ওভারে স্পিনার দেবেন্দ্র বিশুকে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন সেঞ্চুরি থেকে ৩ রান দূরে থাকতে।



সাকিব ফিরলেও তামিম পূর্ণ করেছেন তার দশম ওয়ানডে সেঞ্চুরি। কিন্তু তামিম সেঞ্চুরি করতে খেলেন ১৪৬ বল, যা বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানের সবচেয়ে মন্থরতম সেঞ্চুরি। মুশফিকের ১১ বলে ৩০ রানের ক্যামিতে শেষ দুই ওভারে বাংলাদেশ তোলে ৪৩ রান। ২৭৯ রানের পুঁজি নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪৮ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। দুঃস্বপ্নের টেস্ট সিরিজের পর এই জয় বাংলাদেশ শিবিরে বড় স্বস্তি হয়েই এসেছে।

মাশরাফি জানালেন, সাকিব-তামিমের বিশ্বাস ছিল যে, এই উইকেটে ২৫০ প্লাস রান জয়ের জন্য যথেষ্ট। কারণ বাংলাদেশের লাইনআপে দুই বিশেষজ্ঞ স্পিনারের সঙ্গে আছেন দুই পার্টটাইম স্পিনার।

মাশরাফি বলেছেন, ‘এই উইকেটে ওরা (তামিম ও সাকিব) যদি ওভাবে ব্যাটিং না করত, বাংলাদেশ ২২০ রানেই শেষ হয়ে যেতে পারত। আমরা অন্তত ২৫০ রান নিশ্চিত করতে চেয়েছিলাম। ওরা বুঝতে পেরেছিল, ২৫০ রান তাড়া করা কঠিন হবে এই উইকেটে। ওরা অপ্রয়োজনীয় সময় নেয়নি; দল ওদের থেকে যেমন ব্যাটিং চেয়েছিল ওরা সেভাবেই ব্যাট করেছে। তাদের স্পিনাররা যদি একটি অথবা দুটি উইকেট নিয়ে ফেলত, আমরা বিপদে পড়ে যেতাম। আমার মনে হয়, সাকিব ও তামিম সত্যিই খুব ভালো ব্যাটিং করেছে।’



টেস্টে সিরিজ বাজেভাবে হারের পর দলের মধ্যে একটা গুমোট পরিবেশ বিরাজ করছিল। মাশরাফি অবশ্য আত্মবিশ্বাসী ছিলেন, কোনো ব্যাটসম্যানের একটি ভালো ইনিংস দলের চারপাশের পরিবেশ পরিবর্তন করে দেবে। তবে প্রথম ওয়ানডে জয়ের পর যে আত্মবিশ্বাস দল পেয়েছে, সেটা ধারাবাহিকতায় রূপান্তর করতে হবে বলে মনে করেন অধিনায়ক।

‘আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। কিন্তু এই সফরে যা কিছু হয়েছে, সেটা নিয়ে যদি চিন্তা করতাম, তাহলে এই জয় সম্ভব হতো না। এই দৃঢ়তা অনেক আগেই দেখানো উচিত ছিল আমাদের। এখন এটা আমাদের ধরে রাখতে হবে। আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম, একটি অথবা দুটি ভালো ইনিংস পুরো চিত্রটাই পাল্টে দেবে। ওয়ানডেতে ২৮০ রান ডিফেন্ড করার জন্য ভালো বোলিং লাইনআপ আমাদের আছে’- বলেন মাশরাফি।

একই মাঠে বাংলাদেশ সময় বুধবার রাত সাড়ে ১২টায় দ্বিতীয় ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে দুই দল। এই ম্যাচ জিতলে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতবে বাংলাদেশ।

তথ্যসূত্র : ক্রিকইনফো।