বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই

বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই

টেস্ট সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি বাংলাদেশ। করতে পারেনি ন্যূনতম লড়াইও। সমর্থকদের মতো মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে ক্রিকেটারদেরও। টেস্টের বিভীষিকা কাটিয়ে ওয়ানডে সিরিজে তাই ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া বাংলাদেশ।

আজ গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে খেলতে নামবে বাংলাদেশ দল। ম্যাচ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়।

টেস্টে বাংলাদেশকে ডুবিয়েছে ব্যাটিং। নিজেদের টেস্ট ইতিহাসের সর্বনিম্ন স্কোরের (৪৩) লজ্জা ছিল সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। বাকি তিন ইনিংসের একটিতেও দুইশ রান করতে পারেনি তারা। তবে ওয়ানডে বাংলাদেশের সবচেয়ে স্বাচ্ছন্দ্যের ফরম্যাট। দলে আছেন অনুপ্রেরণাদায়ী অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ওয়ানডেতে তাই ভালো কিছুর আশা করছে সফরকারীরা।

স্ত্রীর অসুস্থতার কারণে কিছুটা দেড়িতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গিয়েছেন মাশরাফি। দীর্ঘ ভ্রমণ ক্লান্তি নিয়েও প্রস্তুতি ম্যাচে হাজির হয়েছিলেন ওয়ানডে অধিনায়ক। যদিও তিনি খেলেননি। না খেললেও ফিল্ডিং করে মাঠে সময় কাটিয়েছেন। সেই প্রস্তুতি ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়ানোর আত্মবিশ্বাসের জ্বালানী পেয়েছে বাংলাদেশ। প্রস্তুতি ম্যাচে ৪ উইকেটের জয় আশার পালে জোর হওয়া দিয়েছে।



টেস্টে যে ব্যাটিং বাংলাদেশকে ডুবিয়েছে, প্রস্তুতি ম্যাচে সেই ব্যাটিংটা বেশ ভালো হয়েছে। রান পেয়েছেন মুশফিকুর রহিম, লিটন দাসরা। মুশফিক অপরাজিত ৭৫, লিটন ৭০ রান করেছিলেন। নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাট থেকে আসে ৪৩ রান। বোলিংয়ে মোসাদ্দেক হোসেন, রুবেল হোসেনরা ভালো করেছেন। অফ স্পিনে মোসাদ্দেক ১৪ রানে ৪টি, রুবেল নিয়েছিলেন ৩ উইকেট। প্রস্তুতি ম্যাচের পারফরম্যান্স ও মাশরাফির উপস্থিতি- নিশ্চিতভাবেই উজ্জীবিত করবে গোটা দলকে।

প্রস্তুতি ম্যাচে শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন এনামুল হক বিজয়। ওপেনিংয়ে তামিম ইকবালের সঙ্গী হিসেবে আজ তাই লিটনকে দেখার সম্ভাবনাই বেশি। পেস বোলিংয়ে নেতৃত্ব দেবেন মাশরাফি। সঙ্গী হিসেবে থাকছেন মুস্তাফিজুর রহমান। যিনি চোটের কারণে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্টে খেলতে পারেননি। রুবেল তো আছেনই। স্পিনে সাকিব আল হাসানের সঙ্গী মেহেদী হাসান মিরাজ।

টেস্ট দলে না থাকা ৭ জন ক্রিকেটার আছেন ওয়ানডেতে। তাদের থেকে ভালো পারফরম্যান্সের আশা মাশরাফির, ‘নতুন কয়েকজন দলে এসেছে। আশা করছি, ওরা এখানে ভালো করবে। যারা এখানে ছিল এবং যারা এসেছে- সব মিলিয়ে কম্বিনেশনটা খুব ভালো।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে কঠিন প্রতিপক্ষ মনে করলেও নিজেদের কাজটা ঠিকমতো করতে চান অধিনায়ক, ‘আমরা জানি, ওয়েস্ট ইন্ডিজ কঠিন দল। তবে আমাদের ইতিবাচক থাকতে হবে। সঠিক জায়গায় এবং তাদের দুর্বলতার জায়গায় বোলিং করতে হবে।’



প্রভিডেন্সের উইকেটে আগে ব্যাটিং করলে ২৬০ কিংবা ২৮০ ভালো স্কোর হতে পারে বলে মনে করেন মাশরাফি, ‘এখানে খেলেছি দীর্ঘ সময় হয়ে গেল। সম্ভবত ২০০৭ সালে। দীর্ঘদিন পর খেলতে আসলে বলা কঠিন। আশা করছি, ২৬০ কিংবা ২৮০ ভালো স্কোর হতে পারে।’

টেস্টের পারফরম্যান্স আত্মবিশ্বাস জোগাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে। জেসন হোল্ডারের দলের ব্যাটিংয়ে শক্তি বাড়াবে ক্রিস গেইল, এভিন লুইস, আন্দ্রে রাসেল। রাসেল দলে ফিরেছেন তিন বছর পর। প্রস্তুতি ম্যাচে রাসেল, গেইল খেলেছেনও। যদিও ভালো করতে পারেননি। মূল ম্যাচে নিশ্চয় জ্বলে উঠতে চাইবেন তারা।