এমবাপে প্রতিপক্ষের জন্য ভীতিকর

এমবাপে প্রতিপক্ষের জন্য ভীতিকর

রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালের আগে ফরাসি ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন দেশটির সাবেক কোচ লোরোঁ ব্লঁ। তার মতে, শেষ চারের প্রতিপক্ষ বেলজিয়ামসহ যে কোনো দলের জন্যই তরুণ এই ফুটবলার ভয়ঙ্কর।

মঙ্গলবার ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে ফ্রান্স ও বেলজিয়াম।

রাশিয়ায় বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার দৌড়ে আছেন ছন্দে থাকা এমবাপে। শেষ ষোলোয় পিএসজি ফরোয়ার্ডের ক্ষিপ্রতার কাছে রীতিমতো আত্মসমর্পণ করে গত বিশ্বকাপের রানার্সআপ আর্জেন্টিনা। চ্যাম্পিয়ন লিগ ও ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানে আলো ছড়ানোর পর বিশ্ব মঞ্চে এমবাপে নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ দিচ্ছেন ফুটবলের সর্বোচ্চ মঞ্চে।

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচটিতে ব্রাজিলের কিংবদন্তি ফুটবলার পেলের পর প্রথম টিনএজার হিসেবে বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচে একাধিক গোলের রেকর্ড গড়েন এমবাপে।

এমবাপেকে পেতে পিএসজির সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছানোর খবর ‘সম্পূর্ণ মিথ্যা’ বলে উড়িয়ে দিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। তবে বিশ্বকাপের নজরকাড়া পারফরম্যান্সের পর অনেক ক্লাবই তাকে দলে টানতে চাইবে তাতে সন্দেহ সামান্যই।

এমবাপেকে দিদিয়ের দেশমের ফ্রান্স দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় বলে মনে করেন ব্লঁ।

“এই বালক সম্পর্কে আমার অভিমত দশ মাস ধরেই খুব পরিষ্কার: সে ফেনোমেনন! এর অর্থ এই না যে, সে আমাদের সব সময় জেতাবে।”

“সে প্রতিপক্ষের মনে ভয় জাগায়। তাকে নিয়ে প্রতিপক্ষ শিবিরের এই ভয় থেকে পুরো দল উপকৃত হয়। সেটা তাকে ও তার সতীর্থদের সুবিধা দেয়। এটা দলের জন্য ভালো হবে।”

বর্তমান ফ্রান্স দলকে বিশ্বকাপ জয়ী দলের সঙ্গে তুলনা করেছেন সাবেক এই ফরাসি ডিফেন্ডার।

“ফ্রান্স দলটাকে দারুণ সম্ভাবনাময় দুইজন খেলোয়াড় নেতৃত্ব দেয়। অঁতোয়ান গ্রিজমানও খুব ভালো, পল পগবা খুব ভালো হতে পারে। তাদের চারপাশে দারুণ সব খেলোয়াড় আছে। যদি আমরা তুলনা করতে চাই, তারা ১৯৯৮ সালের আমাদের দলটার মতো।”

নিজেদের ইতিহাসে দ্বিতীয় বারের মতো বিশ্বকাপ জয়ের সুযোগ দেখছেন ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য ব্লঁ। তবে প্রতিপক্ষ বেলজিয়ামকে সম্মান জানাতে ভোলেননি তিনি।

“রাস্তায় আমার সঙ্গে যার দেখা হয় সেই বলে যে, আমরা বিশ্বকাপটা জিতব। দুই বা তিন মাস আগে খুব কম মানুষই এটা ভাবতে পেরেছিল।”

“ফ্রান্স এরই মধ্যে দেখিয়েছে যে তারা এটা করতে সক্ষম। আমি এটার জন্য শুভ কামনা জানাই, কিন্তু কঠিন অংশটা এখনই শুরু।…আর্জেন্টিনা ও উরুগুয়ের চেয়ে তারা ভালো দল ছিল।