সাফে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান, নেপাল ও ভুটান

সাফে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান, নেপাল ও ভুটান

সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (সাফ) চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বাদশ আসরের আয়োজক বাংলাদেশ। চলতি বছরের ৪ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে ‘সাফ সুজুকি কাপ-২০১৮’। যেখানে অংশ নিবে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কা। এই টুর্নামেন্টের ড্র আজ বুধবার রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ড্রতে আয়োজক হিসেবে বাংলাদেশকে পূর্ব নির্ধারিত ‘এ’ গ্রুপের টপার হিসেবে রাখা হয়। আর বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারতকে রাখা হয় ‘বি’ গ্রুপের টপার হিসেবে। বাকি পাঁচটি দলের ড্র অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হিসেবে পড়েছে নেপাল, ভুটান ও পাকিস্তান। আর ভারতের প্রতিপক্ষ হিসেবে পড়েছে মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কা। দুই গ্রুপের শীর্ষ দুটি দল সেমিফাইনাল খেলবে। সেখান থেকে দুটি দল খেলবে ফাইনাল।
 


বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ৪ সেপ্টেম্বর উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে নেপাল ও পাকিস্তান। উদ্বোধনী দিনের অপর ম্যাচে স্বাগতিক বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভুটান। ৪ থেকে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হবে গ্রুপপর্বের খেলাগুলো। ১২ সেপ্টেম্বর হবে দুটি সেমিফাইনাল। আর ১৫ সেপ্টেম্বর হবে ফাইনাল।

সাফের আগের ১১ আসরে বাংলাদেশ একবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ২০০৩ সালে ঘরের মাঠে মালদ্বীপকে টাইব্রেকারে ৫-৩ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। তার আগে ১৯৯৯ সালে ফাইনালে ভারতের কাছে ২-০ ব্যবধানে হেরে রানার্স-আপ হয়েছিল। ২০০৫ সালে আবারো ফাইনালে ভারতকে পেয়েছিল বাংলাদেশ। প্রতিশোধের সেই ম্যাচে একই ব্যবধানে হেরে রানার্স-আপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে বাংলাদেশকে।
 


এবার ঘরের মাঠে বাংলাদেশ পারবে কী চ্যাম্পিয়ন হতে? পথটা যে সহজ নয়। ফুটবলে বাংলাদেশের বর্তমানে যে অবস্থা তাতে বাংলাদেশের পক্ষে বাজি ধরার লোক খুঁজে পাওয়া ভার হবে। তার উপর ‘এ’ গ্রুপ থেকে সেমিফাইনালে উঠতে হলে কমপক্ষে দুটি ম্যাচে জিততে হবে লাল-সবুজের জার্সিধারীদের। যেখানে ভুটান ও নেপালের মতো দক্ষিণ এশিয়ার উদীয়মান শক্তিধর দল রয়েছে। এই ভুটানের কাছেই হেরে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ১৭ মাসের নির্বাসনে গিয়েছিল বাংলাদেশ। নেপালের বিপক্ষেও সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স উল্লেখ করার মতো নয়।
 


বুধবারের ড্র অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ,  সাফ ও বাফুফের সভাপতি কাজী মো. সালাহউদ্দিন, টুর্নামেন্টের টাইটেল স্পন্সর সুজুকি মোটর করপোরেশন অ্যাডভাইজর (ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটিং অব মারুতি-সুজুকি ইন্ডিয়া লিমিটেড) সেইজি হামাদা।

ড্র পরিচালনা করেন সাফের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক হেলাল।