ক্রাইস্টচার্চের নিয়ন্ত্রণ ইংল্যান্ডের হাতে

ক্রাইস্টচার্চের নিয়ন্ত্রণ ইংল্যান্ডের হাতে

স্টুয়ার্ট ব্রড ও জেমস অ্যান্ডারসনের দারুণ বোলিংয়ের পর মার্ক স্টোনম্যান ও জেমস ভিন্সের ফিফটিতে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের নিয়ন্ত্রণ ইংল্যান্ডের হাতে। নিউজিল্যান্ডকে বড় লক্ষ্য বেঁধে দেওয়ার পথে আছে সফরকারীরা।

সিরিজের দ্বিতীয় এই টেস্টের তৃতীয় দিনে নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসে অলআউট হয়েছে ২৭৮ রানে। দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২০২ রান। প্রথম ইনিংসের ২৯ রান-সহ ইংল্যান্ডের লিড হয়েছে ২৩১, হাতে আছে ৭ উইকেট।

প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যর্থ হয়েছেন অ্যালিস্টার কুক। বাঁহাতি ওপেনার ট্রেন্ট বোল্টের অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ক্যাচ দিয়েছেন উইকেটরক্ষক বিজে ওয়াটলিংকে (১৪)। প্রাক্তন ইংলিশ অধিনায়ক প্রথম ইনিংসেও বোল্টের বলে বোল্ড হয়েছিলেন, করেছিলেন ২ রান।


২৪ রানে কুককে হারানোর পর দ্বিতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়েন স্টোনম্যান ও ভিন্স। দুজনই তুলে নেন ফিফটি। কিন্তু সেটিকে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিতে রূপান্তর করতে পারেননি কেউই। দুজনই ফিরেছেন শেষ সেশনে। টিম সাউদির বলে স্টোনম্যানের (৬০) বিদায়ে ভাঙে ১২৩ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটি। বোল্টের বলে রস টেলরকে ক্যাচ দিয়েছেন ভিন্স (৭৬)।

আলোকস্বল্পতায় আগেভাগেই শেষ হয়েছে দিনের খেলা। চতুর্থ উইকেটে ৩৭ রানের জুটিতে অবিচ্ছিন্ন আছেন অধিনায়ক জো রুট (৩০*) ও ডেভিড মালান (১৯*)।

এর আগে দ্বিতীয় দিনের ৬ উইকেটে ১৯২ রান নিয়ে ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে রোববার তৃতীয় দিন শুরু করেছিল নিউজিল্যান্ড। আগের দিন ৩৬ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর কলিন ডি গ্রান্ডহোমের সঙ্গে ১৪২ রানের জুটিতে নিউজিল্যান্ডকে টেনে তুলেছিলেন ওয়াটলিং। ৭৭ রান নিয়ে দিন শুরু করতে নেমে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান। ২২০ বলে ১১ চার ও এক ছক্কায় ৮৫ রান করে বোল্ড হন অ্যান্ডারসনের বলে।
 


এরপর দ্রুতই ইশ সোধিকে ফিরিয়ে পাঁচ উইকেট পূর্ণ করেন ব্রড। ১৩ রান নিয়ে দিন শুরু করা সাউদি তুলে নিয়েছিলেন ফিফটি। ওয়াটলিংয়ের পর সাউদিকেও (৫০) বোল্ড করেন অ্যান্ডারসন। ২৩৯ রানে ৯ উইকেট হারানোর পর কিউইদের সংগ্রহটা ২৭৮-এ গেছে শেষ উইকেটে নেইল ওয়াগনার ও বোল্টের ৩৯ রানের জুটিতে। বোল্টকে (১৬) ফিরিয়ে স্বাগতিকদের ইনিংস গুটিয়ে দেন ব্রড। ২৪ রানে অপরাজিত ছিলেন ওয়াগনার।

নিউজিল্যান্ডের দশ উইকেটই ভাগ করে নিয়েছেন ব্রড ও অ্যান্ডারসন। ব্রড ৫৪ রানে ৬টি ও অ্যান্ডারসন ৭৬ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৩০৭ ও ২য় ইনিংস: ২০২/৩ (ভিন্স ৭৬, স্টোনম্যান ৬০, রুট ৩০*, মালান ১৯*; বোল্ট ২/৩৮, সাউদি ১/৪২)

নিউজিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ২৭৮ (ওয়াটলিং ৮৫, গ্র্যান্ডহোম ৭২, সাউদি ৫০; ব্রড ৬/৫৪, অ্যান্ডারসন ৪/৭৬)।