ধোনির সঙ্গে তুলনায় বিব্রত কার্তিক

ধোনির সঙ্গে তুলনায় বিব্রত কার্তিক

২০১৬ এশিয়া কাপের ফাইনাল। ১৫ ওভারে বাংলাদেশের ছুড়ে দেওয়া ১২১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নামে ভারত। ১৩ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২ উইকেট হারিয়ে ১০২ রান। জয়ের জন্য শেষ দুই ওভারে দরকার ১৯ রান। ১৪তম ওভারে বল হাতে আসেন আল-আমিন। তার এক ওভারে ২০ রান তুলে দলকে শিরোপা এনে দেন মাহেন্দ্র সিং ধোনি।

২০১৮ নিদাহাস ট্রফির ফাইনালেও একই চিত্রনাট্যের পুনর্মঞ্চায়ন হয়েছে। ফাইনালে জিততে শেষ দুই ওভারে ভারতের দরকার ছিল ৩৪ রান। ১৯তম ওভারে রুবেল হোসেনকে বেধড়ক পিটিয়ে ২২ রান তুললেন দিনেশ কার্তিক। আর সৌম্যর করা শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ভারতকে চ্যাম্পিয়ন বানান তিনি।

এরপর থেকে মাহেন্দ্র সিং ধোনির সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান দিনেশ কার্তিককে। কিন্তু এমন তুলনায় কার্তিক যারপরনাই বিব্রত, ‘আসলে ধোনির সঙ্গে তুলনা করলে আমার এমন মনে হয় যে আমি যে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করি, ধোনি সেটার সেরা ছাত্র। আসলে তিনি এমনই একজন মানুষ যাকে আমি সর্বদা অনুসরণ করি। তার সঙ্গে আমার তুলনা করাটা অন্যায়। তার সঙ্গে আমার তুলনা হয় না। এতে আমি বিব্রত বোধ করি। সে খুবই ভয়ানক ব্যাটসম্যান। কথা কম বলেন, লাজুক স্বভাবের। তবে বর্তমানে সে অনেক কথা বলে, যাতে তরুণরা শিখতে পারে।’

২০০৪ সালে সেপ্টেম্বরে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারতের হয়ে অভিষেক হয় দিনেশ কার্তিকের। তার তিনমাস পর বাংলাদেশের বিপক্ষে অভিষেক হয় ধোনির। এরপর গেল ১৪ বছরে ধোনি সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ভারতের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক হয়ছেন। পরিণত হয়েছেন কিংবদন্তিতে। আর দিনেশ কার্তিক এখনো দলে জায়গা পাওয়ার জন্য সংগ্রাম করে যাচ্ছেন