আগ্নেয়াস্ত্র বিক্রি নিষিদ্ধের পথে এক ধাপ এগোলেন ট্রাম্প

আগ্নেয়াস্ত্র বিক্রি নিষিদ্ধের পথে এক ধাপ এগোলেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রে রাইফেল থেকে স্বয়ংক্রিয় ও দ্রুতগতিতে গুলি ছোড়ার ডিভাইস নিষিদ্ধ ঘোষণার বিষয়ে একটি নির্দেশনায় সই করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজে এ ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পের এই বক্তব্যকে মনে করা হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ প্রসঙ্গে প্রথম সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব।

গত অক্টোবরে লাস ভেগাসের একটি কনসার্টে হামলাকারী 'বাম্প স্টকস' নামে পরিচিত এই ডিভাইসটি ব্যবহার করেছিল এবং ৫৮জনকে গুলি করে হত্যা করেছিল। ওই ঘটনায় আহত হয়েছিল ৫০০ জনের বেশি। এরপর গত সপ্তাহে ফ্লোরিডায় স্কুলে বন্দুক হামলার সময়ও এই ডিভাইস ব্যবহার করা হয়। ওই ঘটনায় নিহত হয় ১৭ জন।

হোয়াইট হাউজে সোমবার ট্রাম্প বলেন, ‘লাস ভেগাসের ভয়াবহ গুলিবর্ষণের ঘটনার পর অ্যাটর্নি জেনারেলকে বাম্প স্টকের মতো ডিভাইসের ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য অথবা বর্তমান আইনে এটিকে বেআইনি করার জন্য আমি নির্দেশনা দিয়েছিলাম। ডিসেম্বর মাস থেকেই এই প্রক্রিয়া শুরু হয়। কয়েক মুহূর্ত আগে আমি একটি সমঝোতায় সই করেছি যেখানে এই ধরনের ডিভাইস যা বৈধ অস্ত্রকে মেশিনগানে রূপ দেয় এমন ধরনের সব ডিভাইস নিষিদ্ধ করার আইন তৈরির বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল বরাবর প্রস্তাব রয়েছে।’

বাম্প স্টক হচ্ছে এমন একটি ডিভাইস যেটি সেমি অটোমেটিক রাইফেল থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মেশিনগানের মত দ্রুততার সাথে গুলি বের হতে সাহায্য করে। কোনও ধরনের অপরাধ রেকর্ড যাচাই-বাছাই ছাড়াই যে কেউ মাত্র ১০০ ডলার দিয়ে এটি কিনতে পারে।

গত অক্টোবরে লাস ভেগাসের ঘটনার পর বাম্প স্টকের ব্যাপারে কঠোর নিয়ম করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ট্রাম্প। কিন্তু এরপর আর এ ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ দৃশ্যমান হয়নি। তবে ফ্লোরিডার ঘটনার পর আগ্নেয়াস্ত্র আইন নিয়ে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়।

ফ্লোরিয়ায় স্কুলে হামলায় যে এআর-১৫ ধাঁচের অ্যাসল্ট রাইফেল ব্যবহার করা হয়েছিল মঙ্গলবার সে ধরণের রাইফেল বিক্রিতে বয়স বেঁধে দেওয়ার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছে হোয়াইট হাউজ।

হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স বলেছেন, ‘আমি মনে করছি এ ধরণের কিছু একটা আমাদের জন্য আলোচনার টেবিলে রয়েছে এবং আমরা আশা করছি আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এ ব্যাপারে আমরা একটা ফলাফল পাব।