১৯ দিন পর রাজারহাটের অপহৃতাকে উদ্ধার, অপহরণকারী আটক

১৯ দিন পর রাজারহাটের অপহৃতাকে উদ্ধার, অপহরণকারী আটক

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : অবশেষে ১৯ দিন পর কুড়িগ্রামের রাজারহাট থানা পুলিশ অপহৃতা কলেজ ছাত্রী প্রতিমা রানী (১৭)কে বগুড়া থেকে উদ্ধার  করেছে। সেই সাথে পুলিশ অপহরণের সঙ্গে জড়িত যুবককে আটক করে কুড়িগ্রাম জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। ১৯ দিন ধরে একটি বাড়িতে আটকে রেখে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে অপহরণকারী জিতু মিয়া নামের ওই যুবক।

পুলিশ ও অপহৃতা জানান, উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের কিশামত নাখেন্দা গ্রামের অমল চন্দ্র রায়ের কন্যা ও সরকারি মীর ইসমাইল হোসেন কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী প্রতিমা রানী (১৭)কে কলেজের সামনে থেকে ১ জানুয়ারি সকাল ৯ ঘটিকায় অপহরণ করে। বাড়ি ফিরে না আসায় অনেক খোঁজাখুঁজির পর তাকে না পেয়ে তার পিতা বাদী হয়ে ৬ জানুয়ারি রাতে রাজারহাট থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করে।

তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ১৯ দিন পর শনিবার রাতে রাজারহাট থানার ওসি (তদন্ত) পবিত্র কুমারের নেতৃত্বে এসআই অনিল চন্দ্র, এএসআই নাছির, পুলিশ সদস্য খাদিজা বেগম’সহ বগুড়া পুলিশের সহায়তায় বগুড়া চারমাথা গোদারপাড় উত্তরপাড়া আজিজার রহমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে অপহৃতা প্রতিমা রানীকে উদ্ধার করে। এসময় পুলিশ অপহরণকারী জিতু মিয়া (২৬)কে আটক করে রাজারহাট থানায় নিয়ে আসে। আটক জিতু মিয়া আজিজার রহমানের ২য় পুত্র।

রোববার সকালে পুলিশ অপহরণকারী জিতুকে জেলহাজতে প্রেরণ করে এবং অপহৃতা প্রতিমা রানীর আদালতের মাধ্যমে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন করে।এ ব্যাপারে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার বলেন,  কুড়িগ্রাম সদর সার্কেল এডিশনাল এসপি উৎপল কুমার রায়ের সার্বিক তত্বাবধানে প্রতিমা রানীকে উদ্ধার করা হয়েছে।