১১ বছর পর ‘ভুলতে বসা অভিজ্ঞতা’র সম্মুখীন দক্ষিণ আফ্রিকা

১১ বছর পর ‘ভুলতে বসা অভিজ্ঞতা’র সম্মুখীন দক্ষিণ আফ্রিকা

চলমান পুনে টেস্টের তৃতীয় দিন (শনিবার) শেষে সকলের মনেই ছিলো একটি প্রশ্ন- দক্ষিণ আফ্রিকাকে আদৌ কি ফলোঅন করাবেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি? নাকি আবার নিজেরাই নেমে পড়বে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে?

এ প্রশ্নের উত্তর মিলেছে আজ (রোববার) সকালেই। ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৩২৬ রানে পিছিয়ে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকানদের আবার ব্যাটিংয়ে ডেকেছে ভারত, করিয়েছে ফলোঅন। আর এমন অভিজ্ঞতার সামনে প্রায় ১১ বছর পর পড়লো দক্ষিণ আফ্রিকা।


সবশেষ ২০০৮ সালের জুলাইতে লর্ডস টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ফলোঅনে পড়েছিল প্রোটিয়ারা। সে ম্যাচে অবশ্য দ্বিতীয় ইনিংসে গ্রায়েম স্মিথ ১০৭, নিল ম্যাকেঞ্জি ১৩৮ ও হাশিম আমলা ১০৪ রান করলে পরাজয় এড়িয়ে ড্র করে দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপর থেকে গত ১০ বছরে একবারের জন্যও ফলোঅনের শিকার হয়নি তারা।

সেই ১১ বছর আগে তিক্ত অভিজ্ঞতা ফিরিয়ে দিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফলোঅন করাল ভারত। অধিনায়ক বিরাট কোহলির অধীনে সপ্তমবারের মতো কোনো দলকে দ্বিতীয়বার ব্যাটিংয়ে ডাকল তারা। এর আগে ছয় ম্যাচের মধ্যে চারটিতে জিতেছিল ভারত, বৃষ্টির কারণে ড্র হয়ে যায় বাকি দুই ম্যাচ।

তবে সপ্তম ম্যাচে এসে দক্ষিণ আফ্রিকার অতীত পরিসংখ্যানই আশা জাগাচ্ছে ভারতীয়দের মনে। চলতি ম্যাচের আগে ৩৮ বার ফলোঅনের শিকার হয়েছে তারা। এর মধ্যে পরাজয় এড়িয়ে ড্র করতে পেরেছে মাত্র ১০টি ম্যাচ, হারতে হয়েছে বাকি ২৮টি ম্যাচ। ফলোঅনের ম্যাচে তাদের ২৯তম পরাজয়ের গ্লানি দিতেই মাঠে লড়ছে এখন ভারত।

এ ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটাও একদমই ভালো হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে সাজঘরে ফিরে যান এইডেন মারক্রাম। অবশ্য রিপ্লেতে দেখা যাচ্ছিলো বলটা লেগস্টাম্পের বাইরে দিয়ে চলে যেত। কিন্তু রিভিউ নেননি মারক্রাম। ফলে পুড়তে হয়েছে দুই ইনিংসেই শূন্য রানে আউট হওয়ার হতাশায়।


ভারতের করা ৬০১ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকা অলআউট হয়ে যায় মাত্র ২৭৫ রানে। ফলে ৩২৬ রানে এগিয়ে থাকার সুবাদে তাদের ফলোঅন করিয়েছে স্বাগতিক ভারত।