১০৮ মেগা পিক্সেলের নতুন এমআই নোট-১০ প্রো

১০৮ মেগা পিক্সেলের নতুন এমআই নোট-১০ প্রো

 বর্তমান মোবাইল জগতে এশিয়া মহাদেশের মানুষের কাছে এমআই খুবই জনপ্রিয় একটি ব্র্যান্ড। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট খেয়াল করলে দেখা যায় অন্যসব মোবাইল ব্র্যান্ড থেকে এমআই অনেক এগিয়ে আছে।
এমআই এর এমন সফলতার ধারাবাহিকতায় এবার তারা নিয়ে এসেছে এমআই নোট-১০ অথবা সিসি ৯ প্রো। সম্প্রতি ইউরোপের বাজারে তারা তাদের নতুন এই মডেলটি ছেড়েছে।
মূলত সিসি ৯ প্রো এর গ্লোবাল ভার্সনকেই বলা হয় এমআই নোট-১০। অর্থাৎ চাইনিজ ভার্সনটি হচ্ছে সিসি ৯ প্রো এবং এবং গ্লোবাল ভার্সনটি হচ্ছে এমআই নোট-১০।
সিসি ৯ প্রো এর ৮-২৫৬ জিবি ভার্সনকে প্রিমিয়াম ভার্সন বলা হয়। এই মডেলটির গ্লোবাল ভার্সনটির নাম হচ্ছে এমআই নোট ১০ প্রো।     
এমআই নোট ১০ এবং এমআই নোট ১০ প্রো এর মধ্যে পার্থক্য শুধু মাত্র দুইটি। প্রথমত র‍্যাম এবং রম এর পার্থক্য এবং দ্বিতীয়ত প্রো ভার্সনে হচ্ছে ৮পি ক্যামেরা অর্থাৎ এই প্রো ভার্সনটির ক্যামেরায় ৮টি ল্যান্স এলিমেনট যুক্ত আছে। শুধু মাত্র এই দুইটি পার্থক্য বাদে বাকি সব কিছুই এক রাখা হয়েছে।
এবার যাওয়া যাক ফোনটির বিস্তারিত সম্পর্কে। প্রথমেই জেনে আসি ফোনটির ক্যামেরা নিয়ে।

এই প্রথম কোন ফোনে ১০৮ মেগা পিক্সেল এর ক্যামেরা ব্যাবহার করা হয়েছে। আর এই অভাবনীয় কাজটি সম্পন্ন করেছে এমআই। এতে রয়েছে ২মেগা পিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা, ২০মেগা পিক্সেলের আলট্রা ওয়াইড ক্যামেরা, ১০৮ মেগা পিক্সেলের হাই রেসূলুসন ক্যামেরা, ১২ মেগা পিক্সেলের টেলিফটো ল্যান্স এবং ৫ মেগা পিক্সেলের টেলিফটো ল্যান্স।
এর ৫ হাজার ২শত ৬০এম এইচ এর ব্যাটারি চার্জ হতে সময় লাগে মাত্র ১ ঘণ্টা। হেভি ব্যাবহারের ক্ষেত্রে এটি ৮ ঘণ্টা টানতে পারবে সহজেই।
কিন্তু বিশাল এই ব্যাটারির কারনে ফোনটির ওজন দাঁড়িয়েছে ২০৮ গ্রাম।
ফোনটির ডিজাইন এর বেলায় বলতে গেলে বলা যায়, এতে করা হয়েছে গ্লাস মেটাল স্যান্ডুইচ বডি। সামনে পেছনে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৫ এর প্রোটেকশন। সামনে রাখা হয়েছে ব্যান্ড ক্রস স্ক্রিন। বাম পাশের কার্ভের পাশে রাখা হয়েছে সিম কার্ড স্লট। এক সাথে ২টি সিম ব্যাবহার করা যাবে।
এতে রাখা হয়েছে ৬.৪৭ইঞ্চ ডিসপ্লে। ফুল এইচডি প্লাস রেসুলুসনের স্যামসাং এমুলেট প্যানেল। ডিসপ্লেটিতে একদম পিচ ব্ল্যাক ডিসপ্লে রাখায় ফোনটিকে খুবই প্রিমিয়াম মনে হয়।

এছাড়াও ডিসপ্লেতে অনস্ক্রিন ফিঙ্গার প্রিন্ট রিডার দেয়া আছে। সাথে ফেস আনলক সিস্টেমও।
এতে দেয়া হয়েছে স্নেপড্রেগন ৭৩০জি চিপসেট। সর্বচ্চো ২.২গিগাহার্জ ওকটা কোর প্রসেসর। এনড্রয়েড ভার্সন ৯।
এমআই সাধারণ ব্যাবহারকারীদের পাশাপাশি গেমারদের কথাও মাথায় রেখেছে, যে কারণে যেকোন হাই গ্রাফিক্সের গেম এতে খেলা যায়।   
ফোনটি ৩টি রঙ্গে পাওয়া যাচ্ছে। কালো, সাদা এবং সবুজ।
১০৮ মেগা পিক্সেল ফোনের দাম বাংলাদেশে ধার্য করা হয়েছে ৬১ হাজার ৫শত টাকা।