হিলিতে হলুদ জাতের তরমুজ চাষ করে সাড়া ফেলেছেন কৃষক সোহেল রানা

হিলিতে হলুদ জাতের তরমুজ চাষ করে সাড়া ফেলেছেন কৃষক সোহেল রানা

হাকিমপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধি: হাকিমপুর উপজেলার হিলির বাসুদেবপুরে হলুদ জাতের বিদেশী গোল্ডেন ক্রাউন তরমুজ চাষ করে সাড়া ফেলেছেন কৃষক সোহেল রানা। দুই বিঘা জমিতে গোল্ডেন ক্রাউন জাতের তরমুজ চাষ করে পেয়েছেন কাঙ্খিত সাফল্যও। সুস্বাদু ও রসালো নতুন জাতের তরমুজের চাষ হিলিতে এই প্রথম শুরু হয়েছে। কৃষক সোহেল রানা চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সখের বসে ২ বিঘা জমিতে হলুদ রঙের তরমুজ চাষ করে এলাকায় সাড়া ফেলেছেন । ভিন্ন জাতের এই তরমুজ দেখতে জমিতে আসছেন এলাকার কৃষক ও উৎসুক সাধারন মানুষ। অনেকেই জমি থেকে টাটকা এই নতুন জাতের তরমুজ কিনছেন। অনেক কৃষক আগ্রহ দেখাচ্ছেন নতুন জাতের এই তরমুজ চাষের।

নতুন গোল্ডেন জাতের তরমুজ চাষী সোহেল রানা জানান, ২ বিঘা জমিতে তরমুজ চাষ করতে তার খরচ হয়েছে প্রায় ৮০ হাজার টাকা। যা অন্য চাষাবাদের চেয়ে অনেক কম। জমিতে বীজ বপনের ৩ মাসের মধ্যেই ফল পাওয়া গেছে। প্রতিটি গাছে ৪-৫টি করে তরমুজ ধরেছে। ওজন ২-৩ কেজি পর্যন্ত হয়েছে। প্রথমবার চাষ করে সফলতা পেয়েছি। আগামীতে আরও বেশি করে চাষের চিন্তা-ভাবনা আছে। ঢাকা থেকে বীজ সংগ্রহ করেন তিনি। কোন কীটনাশকও প্রয়োগ করতে হয় না। অন্য জাতের তরমুজ মাঠিতে হলেও নতুন জাতের তরমুজ মাচাতে হয়। বাজারের ক্রেতারা জানান, সচরাচর আমরা যে তরমুজ খাই। তার চেয়ে একটু আলাদা ফ্লেবার রয়েছে। তবে দাম বেশি। বাজারের তরমুজ বিক্রেতারা জানান, নতুন জাতের এই হলুদ তরমুজ দেখতে খুব সুন্দর। তাই এই তরমুজের চাহিদা ভোক্তাদের কাছে থাকায় বিক্রিও হচ্ছে বেশি। প্রতি কেজি ১২০ টাকা খুচরা হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। হিলিতে একজনই এই চাষ করেছেন।