স্বামীর বাড়ির গেটে নববধূর অবস্থান হয় স্ত্রীর মর্যাদা, নয় আত্মহত্যা

স্বামীর বাড়ির গেটে নববধূর অবস্থান হয় স্ত্রীর মর্যাদা, নয় আত্মহত্যা

লালমনিরহাট অফিস: লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে স্বামীর বাড়িতে অবস্থান করছেন সুমি খাতুন (১৮) নামের এক নববধূ। এ ঘটনা লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়নের চাঁপারতল এলাকায়। গতকাল বৃহস্পতিবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সুমি খাতুন তার স্বামী রিয়াদের বাড়িতে অবস্থান করছেন। গত ৩ জানুয়ারি সকালে সুমি খাতুনের উপস্থিতি টের পেয়ে স্বামী রিয়াদ ও তার পরিবারের লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছেন। অবশেষে ৮দিন ধরে স্বামীর বাড়ির গেটে অবস্থান করছেন ওই নববধূ।

 সুমি খাতুনঅভিযোগ করেন, কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়নের গোপালরায় এলাকার মোজাম্মেল হকের মেয়ে সুমি খাতুন ও একই ইউনিয়নের চাঁপারতল এলাকার শাহাজানের ছেলে বর রিয়াদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্কের জেরে গাজীপুরের সখিপুর এলাকায় পালিয়ে গিয়ে ৫ মাস আগে পরিবারের কাউকে না জানিয়ে রিয়াদ ও সুমি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ভালোই চলছিলো তাদের সংসার। গত ১১ ডিসেম্বর রিয়াদের বাবা শাহাজাহান ভয় দেখালে রিয়াদ তার বাবার নির্দেশে সুমিকে একা রেখে পালিয়ে যায়।

পরে সুমি কোন কূলকিনারা না পেয়ে স্বামীর বাড়িতে চলে আসে। রিয়াদের বাবা শাহাজান প্রভাবশালী হওয়ার কারনে তারা মেয়েটি স্ত্রীর স্বীকৃতি দিতে রাজি হয়নি। ফলে এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোকের মাধ্যমে অনশনরত সুমিকে ও তার দরিদ্র বাবা মোজাম্মেলকে ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে। এর মধ্যে সুমি তার স্বামী রিয়াদের সাথে অনেকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে বলে জানান। ইসলামী শরীহা মোতাবেক রেজিস্ট্রির মাধ্যমে তারা বিয়ে করলেও এখন রিয়াদ তাকে স্ত্রী বলে অস্বীকার করছে। তাই সুমি তার স্বামীর বাড়িতে স্ত্রীর অধিকার পাওয়ার জন্য অবস্থান করছে। স্ত্রীর মর্যাদা না পাওয়া পর্যন্ত এ বাড়িতেই অবস্থান করবো। স্ত্রীর মর্যাদা না পেলে প্রয়োজনে আমি এখানে আত্মহত্যা করবো। এ বিষয়ে কাকিনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিষয়টি হস্তক্ষেপ করলে তিনি সমাধান দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। ইউপি সদস্য আতাউজ্জামান রঞ্জু বলেন, দরিদ্র পরিবারের মেয়েটি যেনো তার স্ত্রীর স্বীকৃতি ফিরে পায় সে জন্য এলাকাবাসীকেই এগিয়ে আসতে হবে।