স্বাগত ২০১৯

স্বাগত ২০১৯

গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জি থেকে বিদায় নিল ২০১৮ সাল। শুরু হলো নতুন বছর, ২০১৯ সাল। কালের বিবর্তনে গ্রেগরীয় ক্যালেন্ডারের ১ জানুয়ারি দিনটি দুনিয়াজুড়ে নববর্ষ হিসেবে পালিত হচ্ছে। ক্যালেন্ডার বদলে গেল। অনেক চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে আমরা প্রবেশ করলাম আরেকটি নতুন বছরে। অর্থাৎ ইংরেজি নববর্ষে। বিগত বছরে অনেক ক্ষেত্রেই আমাদের উন্নয়ন-অগ্রগতির চিত্র আশানুরূপ হলেও কোন কোন ক্ষেত্রে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মাত্রাও বাড়িয়েছে বেশ কিছুটা। অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, তথ্য প্রযুক্তি ইত্যাদি ক্ষেত্রে আমাদের যে অগ্রগতি পরিলক্ষিত হয়েছে নানা রকম প্রতিকূলতা ডিঙ্গিয়ে তা নতুন আশার সঞ্চার করেছে বৈকি। স্বপ্নের পদ্মাসেতু ক্রমেই দৃশ্যমান হয়ে উঠছে। অবকাঠামো উন্নয়নেরও অনেক সফলতা রয়েছে। গ্যাস ও বিদ্যুতের পাশাপাশি কৃষি খাতের অগ্রগতিও ছিল উল্লেখযোগ্য। তা সত্বেও বিনিয়োগ বৃদ্ধির ক্ষেত্রে অগ্রগতি যথেষ্ট উৎসাহব্যঞ্জক নয়।

ব্যাংকিং খাতের দুর্বলতাও ছিল চোখে পড়ার মতো। কিন্তু রাজনীতি, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, বাজার পরিস্থিতিসহ জনজীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত কিছু বিষয়ের সার্বিক চিত্র অনুজ্জল। আমরা গত বছরে  দেশবরেণ্য অনেককেই হারিয়েছি যারা শিল্প-সংস্কৃতি, রাজনীতি, শিক্ষা, গণমাধ্যম, অর্থনীতিসহ নানাক্ষেত্রে ব্যাপক অবদান রেখে গেছেন। গভীর শ্রদ্ধায় আমরা তাদের স্মরণ করি।  সবকিছুর পর কথা হচ্ছে, অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের এগোতে হবে সামনের দিকে। জাতীয় স্বার্থ ও ইস্যুতে সরকার এবং বিরোধী দলের মধ্যে ঐক্যের কোন বিকল্প নেই। অনেক প্রতিকূলতা, প্রতিবন্ধকতা ডিঙ্গিয়ে উন্নয়নের প্রায় সব সূচকেই বাংলাদেশের অবস্থান নতুন আশা জাগায়, শুধু প্রয়োজন চলমান রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব, সংঘাতের অবসান, জাতীয় ইস্যুতে ঐকমত্য, দায়িত্বশীলদের স্বচ্ছ কর্মকান্ড, পরিকল্পিত কার্যকলাপ, দুর্নীতির নির্মূল, সবক্ষেত্রে জবাবদিহিতা ও দায়বদ্ধতা, সর্বোপরি চাই নিখাদ দেশপ্রেম। এগুলো নিশ্চিত করা গেলে দেশ-জাতির আকাশে জমে থাকা সব কালো মেঘ কেটে যাবে। পুরনো বছরের সব দু:খ-বেদনা, ব্যর্থতাকে ঝেড়ে ফেলে শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ধরে এগিয়ে চলার নতুন প্রত্যয়ে শুরু হোক নতুন বছর। আমাদের পাঠক, গ্রাহক, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের নতুন বছরের শুভেচ্ছা ও শুভ নববর্ষ।