‘সে নিজেকে মনে করেছিল অনেক বড় ক্রিকেটার’

‘সে নিজেকে মনে করেছিল অনেক বড় ক্রিকেটার’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে ফিরে আসার ১৫ দিনের মধ্যে আদালতে হাজিরা দিতে হবে। না হয় ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা অটোমেটিক জারি হয়ে যাবে। স্ত্রী হাসিন জাহানের করা নির্যাতন মামলায় কলকাতার আলিপুর আদালত এই আদেশ দিয়েছেন গতকাল।

এ নিয়ে মিডিয়ার সামনে কথা বলেন হাসিন জাহান। স্বামী মোহাম্মদ শামির ওপর যারপরনাই ক্ষুব্ধ তিনি। ভারতীয় জাতীয় দলের পেসার হলেও শামিকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে চান তিনি। গত বছরই এ নিয়ে প্রথমে সোশ্যাল মিডিয়ায়, এরপর কলকাতা পুলিশের সদর দফতর লালবাজারে গিয়ে শামির বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি।


এ নিয়ে গত এক বছর নানা আলোচনা-সমালোচনার জন্ম হয়েছে। নানা বাঁকে গিয়েছে মামলার গতিবিধি। শেষ পর্যন্ত ঠিকই শর্তসাপেক্ষে গ্রেফতারি ফরোয়ানা জারি করলো আদালত।

এ কারণে মিডিয়ার সামনে কথা বলতে গিয়ে জুডিসিয়াল সিস্টেমের ওপর নিজের আস্থার কথা জানান হাসিন জাহান। তিনি জানিয়ে দেন, কেউ নিজেকে পাওয়ারফুল মনে করলেও আইনির চোখে সমান। অপরাধ করলে তাকে আইনের মুখোমুখি হতেই হবে।

মিডিয়াকে হাসিন জাহান বলেন, ‘আমি জুডিসিয়াল সিস্টেমের ওপর খুবই সন্তুষ্ট। গত একটি বছর ধরে সঠিক বিচারের জন্য লড়াই করে যাচ্ছি। আপনারা সবাই জানেন, শামি চিন্তা করতে শুরু করেছিল যে, সে খুবই ক্ষমতাবান। এ কারণে সে নিজেকে অনেক বড় ক্ষমতাবানও মনে করে।’

কলকাতা থেকে না আসলে কিংবা মমতা ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী না থাকলে নাকি হাসিন জাহানের জীবন-যাপনই হুমকির মুখে পড়ে যেতো। তিনি নিজেই বলেন, ‘আমি যদি পশ্চিমবঙ্গের না হতাম কিংবা আমাদের মুখ্যমন্ত্রী যদি মমতা ব্যানার্জি না হতেন, তাহলে এখানে আমি নিরাপদে থাকতেই পারতামন না। আমরোহা (উত্তর প্রদেশ) পুলিশ আমাকে এবং আমার কন্যাকে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করেছে। তবে, সৃষ্টিকর্তার দয়ায় তারা সফল হতে পারেনি।’

মোহাম্মদ শামির ভাই হাসিব আহমেদকেও মামলার আসামী করা হয়েছে।