সরকারি উদ্যোগে ঝিলপাড় বস্তিবাসীর পুনর্বাসন করতে হবে

সরকারি উদ্যোগে ঝিলপাড় বস্তিবাসীর পুনর্বাসন করতে হবে

 জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, মিরপুরের চলন্তিকা মোড়ে ঝিলপাড় বস্তিতে সর্বস্ব হারানো হতদরিদ্র মানুষদের সরকারি উদ্যোগেই পুনর্বাসন করতে হবে। হতদরিদ্র এই মানুষদের ভোটেই সরকার নির্বাচিত হয়। অগ্নিকাণ্ডে সবহারানো এই মানুষগুলোই আমাদের মূল শক্তি।


অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া মিরপুরের ঝিলপাড় বস্তির সবহারা মানুষদের মধ্যে মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সকালে ত্রাণ বিতরণের সময় তিনি এ কথা বলেন। 

জি এম কাদের বলেন, সাধারণ মানুষের ট্যাক্সের টাকায় রাষ্ট্রীয় বাজেট তৈরি হয়। আর বাজেটে দুঃস্থ ও হতদরিদ্র মানুষের কল্যাণে বরাদ্দ থাকে। সরকারের অনেক অনেক সুবিধা থাকে যা নিঃস্ব মানুষের কল্যাণে কাজে আসে। কিন্তু আমরা নেতা-কর্মীদের দেওয়া সহায়তা নিয়ে আপনাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। আমাদের সাধ্যমতো সহায়তা নিয়ে দুঃস্থ মানুষের পাশে সবসময় থাকবো। 

তিনি আরো বলেন, সংসদেও আমরা অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের দাবিতে কথা বলবো। অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে থাকতে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন পার্টির চেয়ারম্যান।

এসময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত বস্তির জমি সরকারি খাস জায়গা। এই জমি কারো দখলে থাকতে পারে না। এই জমিতে অগ্নিকাণ্ডে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, সেই হতদরিদ্র মানুষদের তালিকা করে পুনর্বাসনের দাবিও জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, পল্লীবন্ধু সব সময় হতদরিদ্র ও বিপন্ন মানুষের পাশে থেকেছেন। আমরাও পল্লীবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানীত হয়ে দুঃস্থ মানুষদের পাশে থাকবো আজীবন।

এসময় জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান আমানত হোসেন, মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক, যুগ্ম মহাসচিব সুলতান মাহমুদ সেলিম, যুগ্ম দফতর সম্পাদক এম. এ. রাজ্জাক খান, কেন্দ্রীয় নেতা মোহাম্মদ আলী খান, মেহেদী হাসান শিপন, মোতাহার হোসেন, রূপনগর থানা জাতীয় পার্টির সভাপতি খলিল মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।