সরকার দ্বৈতনীতি অনুসরণ করছে : মির্জা ফখরুল

সরকার দ্বৈতনীতি অনুসরণ করছে : মির্জা ফখরুল

রাজধানীতে জনসমাবেশের অনুমতি নিয়ে সরকার দ্বৈতনীতি অনুসরণ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস। ২০১৪ সালের এই দিনে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে নতুন করে হত্যা করা হয়েছিলো। দিবসটি পালনে পুলিশ কর্তৃপক্ষ শুক্রবার আমাদেরকে সমাবেশ করার অনুমতি দেয়নি, নাকচ করে দিয়েছে। অথচ আওয়ামী লীগকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণে জনসভা করবার অনুমতি দিয়েছে। তাহলে বুঝতেই পারছেন সরকার দ্বৈতনীতি অনুসরণ করেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন ফখরুল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস প্রতিনিধি নির্বাচনে ‘জাতীয়তাবাদী প্যানেল’ পরিচিতি উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়। অনুষ্ঠানে প্যানেলের ২৫জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস প্রার্থীকে পরিচয় করিয়ে দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক আখতার হোসেন খান। ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটসরা হলেন-অধ্যাপক আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, উম্মে কুলসুম রওজাতুর রোম্মান, একেএম ফজলুল হক, আবদুল বারী (ড্যানি), অধ্যাপক এটিএম ফজলুর করীম, এবিএম মোশাররফ হোসেন, অধ্যাপক ডা. এসএম রফিকুল ইসলাম (বাচ্চু), কেএম আমিরুজ্জামান শিমুল, ড. চৌধুরী মাহমুদ হাসান, জিন্নাতুন নেছা তাহমিদা বেগম, তৈমুর আলম খন্দকার, ডা. প্রভাত চন্দ্র বিশ্বাস, অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, মোহাম্মদ আবদুর রব, অধ্যাপক মোহাম্মদ আলমোজাদ্দেদী আলফেছানী, অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ রফিকুল কবির লাবু, মো. আশরাফুল হক, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, ডা. মো. মোয়াজ্জেম হোসেন, ড. মো শরীফুল ইসলাম দুলু, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, অধ্যক্ষ সেলিম ভুঁইয়া, সেলিমুজ্জামান মোল্যা সেলিম, শওকত মাহমুদ ও ড. সদরুল আমীন। জাতীয়তাবাদী প্যানেলের প্রার্থীদের বিজয়ী করতে গণতান্ত্রিক ও জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নামার আহ্বান জানান বিএনপির মহাসচিব। আগামী ৬ জানুয়ারি ও ১৩ জানুয়ারি সারাদেশে এবং ২০ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এমাজউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে এবং সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. জাহিদ হোসেনর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস প্রতিনিধি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল নোমান, ঢাবির অধ্যাপক ওবায়দুল ইসলাম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।