সংরক্ষিত মহিলা আসন ৫ যোগ্যতায় মনোনয়ন দিবে আওয়ামী লীগ

সংরক্ষিত মহিলা আসন ৫ যোগ্যতায় মনোনয়ন দিবে আওয়ামী লীগ

মাহফুজ সাদি: একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৫টি ‘যোগ্যতা’ বিবেচনায় নিয়ে মনোনয়ন দেবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এবার মাত্র ৪৩টি আসনের বিপরীতে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের হিড়িক পড়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী গত চার দিনে ১৪শ’র বেশি মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন আগ্রহীরা। এর মধ্যে দলটির নেত্রী-কর্মী,অভিনেত্রী থেকে শুরু করে তৃতীয় লিঙ্গের প্রতিনিধিরাও রয়েছেন। রেকর্ড সংখ্যক মনোনয়নপ্রত্যাশীর মধ্যে কারা পাচ্ছেন এবার মনোনয়ন? এ নিয়ে চলছে আওয়ামী লীগের ভেতরে-বাইরে নানা আলোচনা।মঙ্গলবার থেকে আওয়ামী লীগের ফরম বিক্রি ও জমাদান কার্যক্রম শুরু হয়ে শেষ হয় গতকাল শুক্রবার। দলটির সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ফরম বিক্রি ও জমা নেয়া হচ্ছে। দলটির দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ফরম জমা নিচ্ছেন।আওয়ামী লীগ সূত্র জানিয়েছে, এবার মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে ৫টি মাপকাঠি নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫টি ‘যোগ্যতা’ থাকলে মনোনয়ন পাবে, অপর ৫টি ‘অযোগ্যতা’ থাকলে মনোনয়ন পাবে না। এ সব বিবেচনা করেই আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন।

বিপুল সংখ্যক মনোনয়ন ফরম বিতরণের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, আগের চেয়ে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে। তাই প্রার্থী হতে চাওয়াদের সংখ্যাও বাড়ছে। তবে তাদের মধ্যে ত্যাগীদের এ পদে বেশি মূল্যায়ন করা হবে। তিনি আরো বলেন, তারকা হলেই মনোনয়ন মিলবে না। দলের যোগ্য, ত্যাগী ও পরীক্ষিতও হতে হবে। এক্ষেত্রে গত নির্বাচনে যারা বেশি সক্রিয় ছিলেন, তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।পাঁচ যোগ্যতার মধ্যে রয়েছে- ১. প্রায় ২১টি জেলায় এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ থেকে মহিলা এমপি মনোনীত হয়নি। এ সব জেলার মনোনয়নপ্রত্যাশীরা এবার অগ্রাধিকার পাবেন। ২. পর্যায়ক্রমে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, যুব মহিলা লীগ ও মহিলা আওয়ামী লীগে দীর্ঘদিন ধরে সক্রিয়ভাবে কাজ করা নেত্রীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। ৩. বিভিন্ন সময় বিএনপি-জামায়াতের দ্বারা নির্যাতিত ও ক্ষতিগ্রস্ত এবং আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় নারীদের গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা হবে। ৪. দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় থাকার পরও এখন পর্যন্ত যারা কিছুই পাননি। ৫. আওয়ামী লীগ করা বিভিন্ন পেশাজীবীদের মধ্যে আলোচিত নারীদের প্রতি বিশেষ বিবেচনা থাকবে।

পাঁচ অযোগ্যতার মধ্যে রয়েছে- ১. আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত না থাকা আগ্রহীরা বাদ পড়বেন। ২. আগে বিএনপি-জামায়াতের করলেও এখন আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ারা বাদ যাবেন। ৩. এক-এগারোর সময়ের সংস্কারপন্থী বা সংস্কারপন্থীদের ঘনিষ্ঠদের মনোনয়ন দেয়া হবে না। ৪. সংসদ সদস্য হয়েও যারা দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছেন বা দুর্নীতির অভিযোগ আছে, তারা বাদ পড়ছেন। ৫. যারা বিভিন্ন সময় বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়েছেন এবং সমালোচিতও হয়েছেন তারাও বাদ যাবেন।বাংলাদেশের ৩৫০ আসনের সংসদে ৫০টি আসন নারীদের জন্য সংরক্ষিত। এবার ২৯৯ আসনে সরাসরি ভোট হলেও সংরক্ষিত আসন বণ্টন হয় ভোটে জয়ী দলগুলোর আসন সংখ্যার অনুপাতে। আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিতে এবার আওয়ামী লীগ ৪৩টি, জাতীয় পার্টি ৪টি, বিএনপি ১টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ১টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জোটভুক্ত হয়ে ১টি সংরক্ষিত আসন পেতে পারে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, দলটির ৪৩টি আসনের বিপরীতে প্রায় ১৪-১৫শ প্রার্থী হবেন। প্রথম তিনদিনে মোট ১৩৮৩ জন আগ্রহী প্রার্থী মনোনয়ন নিয়েছেন।