শ্রীলঙ্কায় মুসলিম ভোটারদের বহনকারী বাসে বন্দুক হামলা

শ্রীলঙ্কায় মুসলিম ভোটারদের বহনকারী বাসে বন্দুক হামলা

শ্রীলঙ্কার উত্তরপশ্চিমাঞ্চলে সংখ্যালঘু মুসলিম ভোটারদের বহনকারী বাসে বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটেছে। আজ শনিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচন চলাকালে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ।
এ ঘটনায় হতাহতের কোনও খবর পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে শ্রীলঙ্কার কর্মকর্তারা। তবে একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেছেন, শতাধিক গাড়ি বহরের পথরোধ করতে হামলাকারীরা রাস্তায় টায়ার পোড়ায়।
রাজধানী কলম্বোর ২৪০ কিলোমিটার উত্তরে তান্তিরিমালের একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, বন্দুকধারীরা গুলি ছোড়ে এবং পাথরও ছোড়ে। দুটি বাস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিন্তু আমরা এখনও হতাহতের কোনও খবর পাইনি।
পুলিশ বলছে, উপকূলীয় শহর পুত্তালাম থেকে পার্শ্ববর্তী মানার জেলায় যাচ্ছিলেন ওই মুসলিম ভোটাররা। তারা মানার জেলার ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত।
পরে পুলিশের টিম গিয়ে রাস্তার প্রতিবন্ধকতা সরিয়ে দেয় এবং বাসের যাত্রীদের ভোটকেন্দ্র পর্যন্ত পাহারা দিয়ে নিয়ে যায়। তামিল অধ্যুষিত জাফনায় পুলিশ ও সেনাবাহিনীর উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যেই এই হামলার ঘটনা ঘটলো। সেখানকার বাসিন্দাদের অভিযোগ নির্বাচনকে সামনের রেখে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে সেনাবাহিনী।
স্বাধীন নির্বাচন কমিশনকে পুলিশ জানিয়েছে, সেনাবাহিনী অবৈধভাবে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। এর ফলে বাসিন্দারা ভোটকেন্দ্রে অবাধে যাতায়াত করার ক্ষেত্রে অসুবিধায় পড়বেন।
পুলিশ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, একটি জাতীয় নির্বাচনের সময় সেনাবাহিনী রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে এমন খবরে, পুলিশ তা সরিয়ে দিয়েছে। এছাড়া কোনও ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না করার ব্যাপারে স্থানীয় সেনা কমান্ডারদেরও সতর্ক করে দিয়েছে পুলিশ।