শীত মৌসুমের বিদায়ে সিলেটে শিলাবৃষ্টি

শীত মৌসুমের বিদায়ে সিলেটে শিলাবৃষ্টি

দিনে গরম, রাতে শীত। ফাগুনের এই দিনে এমন আবহাওয়া এখন সিলেটে। প্রকৃতিতে ঋতুরাজ বসন্তে রাঙিয়ে শীত যেন আস্তে আস্তে বিদায় নিচ্ছে। আর শীতের সেই বিদায়ের বার্তা নিয়ে এলো শেষ বৃষ্টি। যেটাকে শীতের বিদায়ী বৃষ্টিও বলে থাকেন আবহাওয়াবিদরা।

রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে শীত মৌসুমের বিদায়ী বৃষ্টি সিলেটের উপর দিয়ে হয়ে গেলো। বজ্রবৃষ্টির সঙ্গে শিলাবৃষ্টি হয়েছে কোনো কোনো স্থানে।
 
প্রকৃতিতে এখন বসন্ত রাঙা। গাছে শোভা পাচ্ছে মুকুল। আর শিলাবৃষ্টির কারণে গাছ গাছালি থেকে আমের মুকুল কিছুটা হলেও ঝরেছে। বসন্তের দিনে যেন আকাশে অশান্ত কালবৈশাখের ঘনঘটা!
 
আবহাওয়া অধিদফতর সিলেটের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিধ সাইদ আহমদ চৌধুরী বলেন, এটাই শীত মৌসুমের শেষ বৃষ্টিপাত। এই বৃষ্টির মধ্য দিয়ে শীতকে বিদায় জানানো বলা চলে। সকালে বজ্রবৃষ্টির সঙ্গে আধা ইঞ্চি ব্যাসার্ধ পরিমাণ শিলাবৃষ্টি হয়েছে।
 
তিনি বলেন, সিলেটের বিভিন্ন স্থানে সকাল থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। এর আগে ভোর ৬টার পর শিলাবৃষ্টিও হয়েছে। এতে অন্যান্য দিনের তুলনায় তাপমাত্রাও খানিকটা হ্রাস পেয়েছে।
 
সকাল পৌনে ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সিলেটে থেমে থেমে বৃষ্টিপাত হচ্ছিল। যদিও আবহাওয়া অধিদফতর আগেই শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে সিলেটসহ ৭টি বিভাগে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টির আবাস দিয়েছে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে মৌসুমী লঘুচাপের কারণে।
 
এতে বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ উপ-হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এর ফলে সিলেট, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে রংপুর, রাজশাহী, খুলনা ও ময়মনসিংহ বিভাগের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য এবং দিনের তাপমাত্র ১/৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে।