শসার কিছু পুষ্টিগুণ ও ব্যবহার

শসার কিছু পুষ্টিগুণ ও ব্যবহার

সবজি হিসেবে শসার চাহিদা অনেক। বিশেষ করে গরমে শসা খেলে দারুণ স্বস্তি পাওয়া যায়। সালাদ তৈরিতে, কাঁচা কিংবা রান্না করে- সব রকমভাবেই খাওয়া যায় শসা। রূপচর্চার ক্ষেত্রে শসা ছাড়া প্রায় সবকিছুই অপূর্ণ। এতসবকিছুর বাইরেও রয়েছে শসার কিছু ব্যতিক্রমী ব্যবহার।

চলুন জেনে নিই, শসার কিছু পুষ্টিগুণ-

  • খোসা সহ শসায় পটাশিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন কে, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, ম্যাগনেশিয়াম, প্যানটোথেনিক এসিড ও ভিটামিন এ থাকে। এতে সোডিয়াম, কোলেস্টেরল ও স্যাচুরেটেড ফ্যাট খুব কম থাকে।
  • একটানা কাজ করলে অনেকের মাথা ব্যথা হয়। এই রকম মাথা ব্যথা হলে কয়েক টুকরা শসা খেয়ে ৫ মিনিট চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকুন। মাথা ব্যথা সেরে যাবে।
  • শসায় প্রচুর পানি থাকে তাই, শরীরের তাপমাত্রা কমিয়ে মনকে প্রশান্ত করে তোলে।
  • আপনার বাগানে কীটপতঙ্গ দূর করতে অ্যালুমিনিয়ামের একটি পাত্রে কয়েক টুকরো শসা নিয়ে বাগানে রেখে দিন। অ্যালুমিনিয়াম ও শসা বিক্রিয়া করে কীটপতঙ্গ দূর করবে।
  • শসা বুকজ্বলা, পাকস্থলীর এসিডিটি এমনকি গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি দিতে পারে।
  •  প্রতিদিন শসার জুস খেলে অ্যাকজিমা এবং গাউটে উপকার পাওয়া যায়। এটি ডায়াবেটিসও কিছুটা উপশম করে।
  • বাসার ছোট্ট শিশুটি দেয়ালে পেন্সিল দিয়ে হিবিজিবি এঁকে দাগ ফেললে শসার খোসা নিয়ে ক্রেয়নের দাগগুলো মৃদু ঘষে তুলে ফেলুন। দেখবেন সহজে উঠে গেছে। কলমের কালিও শসার খোসা দিয়ে ঘষে তুলে ফেলা যায়।

  • যদি ক্ষুধা বোধ করেন, কিন্তু খাওয়ার সময় না হয়ে থাকে, তাহলে কয়েক টুকরো শসা খেয়ে নিতে পারেন, কারণ এতে ক্যালরির পরিমাণ কম।
  • শসার জুস কিডনি এবং গলব্লাডারের পাথর অপসারণে সহায়তা করে।
  • বাত-ব্যথা প্রশমনের জন্য শসা ও গাজর একসঙ্গে জুস বানিয়ে খেলে উপকার পাবেন।
  • থালা বাসন পরিষ্কারেও শসা বেশ উপকারি। স্টেইনলেস স্টিল, সিংক এসব পরিষ্কার করতে পারেন শসার টুকরো দিয়ে।
  • এটি মূত্রবর্ধক হিসেবে কাজ করে। শরীরের জমানো ক্ষতিকর ও বিষাক্ত উপাদানগুলো অপসারণ করে রক্তকে পরিষ্কার রাখে।
  • সূত্র : sokalerhasi.com