লালমনিরহাটে মোগলহাট রেলপথের ১০ কিলোমিটার লাইন চুরি

লালমনিরহাটে মোগলহাট রেলপথের ১০ কিলোমিটার লাইন চুরি

লালমনিরহাট অফিস : লালমনিরহাটে মোগলহাট রেলপথের ১২ কিলোমিটারের মধ্যে ১০ কিলোমিটার লাইন ও স্লিপার চুরি হয়ে গেছে। মামলা দিয়েও রক্ষা হয়নি ভারতের সঙ্গে যুক্ত থাকা এ রেলপথ। কর্তৃপক্ষের অবহেলায় বাকি দুই কিলোমিটার পথের লাইনও খোয়া যাওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। জানা গেছে, রেলপথটি পরিত্যক্ত হয়ে পড়েছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের অবহেলায় দিন দিন নষ্ট হচ্ছে কয়েক কোটি টাকা মূল্যের সম্পদ। এরমধ্যে লালমনিরহাট মোগলহাট ১২ কিলোমিটার পথের প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকার লাইন ও স্লিপারসহ সব কিছু চুরি হয়ে যায়। তবে এ রেলপথ ও স্থলবন্দরটি পুনরায় চালু করতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছেন স্থানীয়রা। সম্প্রতি নেপালের একটি প্রতিনিধি দল রেলপথসহ স্থলবন্দরের সম্ভবতা যাচাই করতে পরিদর্শন করেন।

স্থানীয়রা জানান, রাতের আঁধারে একটি চক্র স্থানীয়দের জিম্মি করে রেললাইন কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এর প্রতিবাদ করলে তাদের মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হচ্ছে। দুই কিলোমিটার অংশে ভূমিহীনরা ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করায় তা চুরি করতে পারেনি। তবে তাদের ঘর সরাতে হুমকি দিচ্ছে চক্রটি।
জিআরপি পুলিশ তদন্ত করে লালমনিরহাট শহরের সাপ্টানা এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান মিজান ও কুরুল এলাকার কোরবান আলীর ছেলে শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। কিন্তু ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের ছত্রছায়ায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন মিজান বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। রেললাইন চুরি মামলার সাক্ষী কর্নপুর পাতুরগেট এলাকার মন্টু মিয়া বলেন, যখন লাইন চুরি যায় তখন আমি ঢাকায় রিকশা চালাই। আমি কিছুই জানি না তবুও পুলিশ আমাকে সাক্ষী করেছে।

রেলওয়ে লালমনিরহাট বিভাগীয় ব্যবস্থাপক শফিকুর রহমান শফিক বলেন, পরিত্যক্ত এ রেলপথ পুনরায় চালু করে ভারতের গিতালদাহের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ রক্ষায় উভয় দেশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কয়েক দফায় পরিদর্শন করেছেন। তবে এখন না হলেও ভবিষ্যতে চালু হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। রেললাইন চুরির বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে রেলওয়ের সম্পদ রক্ষায় অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।