লক্ষ্মীপুরে কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ

লক্ষ্মীপুরে কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ

 লক্ষ্মীপুরে আসমা আক্তার (১৪) নামে এক কিশোরীর বিবস্ত্র অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। কিশোরী আসমার স্বজনদের অভিযোগ, তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।

রোববার (১০ জুন) সকালে জেলার সদর হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসকরা জানান, কিশোরীর ময়না তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন পেলে সে ধর্ষণের শিকার হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।

এর আগে শনিবার (৯ জুন) দিবাগত রাত ১০টার দিকে সদর উপজেলার শাকচর গ্রামের বাড়ির পাশের একটি পুকুর থেকে ওই কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শাকচর গ্রামের বাসিন্দা ফয়েজ আহমদ তার মেয়ে আসমাকে বাড়িতে রেখে স্বামী-স্ত্রী দু’জনে কর্মস্থলে (ফেনী) যান। আসমাকে তার নানী হালিমা বেগমের দায়িত্বে রেখে যাওয়া হয়। শনিবার সন্ধ্যায় তাকে বাড়িতে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করেন নানীসহ অন্য স্বজনরা। পরে রাত ১০টার দিকে বাড়ির পাশের পুকুরে তার দেহ ভাসতে দেখা যায়। স্থানীয়রা এসে বিবস্ত্র অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মামা মো. হানিফ ও নানী হালিমা বেগম বলেন, বিবস্ত্র অবস্থায় পুকুর থেকে আসমার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে ধর্ষণ শেষে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক জয়নাল আবদীন জানান, কিশোরীকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। তবে তার শরীরের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধর্ষণের ঘটনা নিশ্চিত নয়, কিন্তু ময়না তদন্তের পর সে ধর্ষণের শিকার হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে বলেও জানান তিনি।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি-তদন্ত) মোহাম্মদ মোসলেহ উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।