রিয়াদ খেলবেন নাকি খেলবেন না? একাদশ নিয়ে ধোঁয়াশা অবস্থা

রিয়াদ খেলবেন নাকি খেলবেন না? একাদশ নিয়ে ধোঁয়াশা অবস্থা

ভারতের বিপক্ষে মাশরাফি-মোস্তাফিজ আর সাকিবের মত ম্যাচ উইনিং পারফরম্যান্স নেই তার। এমনকি তামিম-মুশফিকের মত ভারতীয়দের বিপক্ষে তার রেকর্ডটাও অত সমৃদ্ধ না। তারপরও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ‘পঞ্চ পান্ডবের’ একজন। বাংলাদেশের পাঁচ স্তম্ভর একটি।

দলে রিয়াদ থাকা মানেই বাড়তি শক্তি ও আস্থা। বিশেষ করে মিডল ও লেট অর্ডারে রিয়াদ অনেক বড় নির্ভরতার নাম। আইসিসির যেকোনো আসর তথা বিশ্বকাপ, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের অন্যতম সেরা পারফরমার রিয়াদ।


গত বিশ্বকাপে দু’টি আর দুই বছর আগে এই যুক্তরাজ্যের কার্ডিফে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শতরান করে দল জেতানোর রেকর্ড আছে তার। এবার সে তুলনায় ব্যাটে রান কম। তারপরও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে আর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রিয়াদ দেখিয়ে দিয়েছেন তার সামর্থ্য।

কিন্তু ভারতের বিপক্ষে মঙ্গলবার (আজ) গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে তার খেলা নিয়ে এখনো আছে সংশয়। সেই আফগানিস্তানের সাথে বিপক্ষে ২৪ জুলাই ম্যাচে রান নিতে গিয়ে পায়ের কাফ মাসলে টান পড়েছে।

দলীয় ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন আর প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুসহ টিম ম্যানেজমেন্টের সবাই বলছেন, রিয়াদ প্রাণপন চেষ্টা করছেন মাঠে ফিরতে এবং ভারতের সাথে ম্যাচ খেলতে।

গত দুইদিন তথা রোববার আর সোমবারও প্র্যাকটিস করেছেন রিয়াদ। এজবাস্টনে গতকাল প্র্যাকটিস সেশনে প্রায় এক ঘন্টা তাকে নিয়ে একান্তে কাজ করে গেলেন ফিজিও থিলান চন্দ্রমোহন।

রিয়াদকে নানা ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ করানো হলো। পায়েরই শুধু নয়, হাত ও অন্যান্য মাসল এবং সারা শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সঞ্চালনও করা হলো বারবার। খুঁটিয়ে দেখা হলো সমস্যা আছে কিনা? পুরো দল যখন প্র্যাকটিসে, তখন রিয়াদ একা ফিজিওর সাথে ফিজিক্যাল এক্সারসাইজে ব্যস্ত ছিলেন। তা দেখে মনে হচ্ছিল আজ বুঝি তার খেলার কোনো সুযোগ নেই।

তবে শেষ দিকে পাশে প্র্যাকটিস গ্রাউন্ডে নেটে ব্যাটিং প্র্যাকটিস করলেন খানিকক্ষণ। তখনই আবার পাল্টে গেল সুর। আবার গুঞ্জন, তবে কি খেলবেন রিয়াদ? গতকাল সংবাদ সম্মেলনেও এই প্রশ্নের জট খোলেনি। ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন  নিশ্চিত করে বলতে পারেননি কিছু।

অধিনায়ক মাশরাফিও প্রেস কনফারেন্সে পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন রিয়াদের অবস্থা সম্পর্কে, 'সে খেলতে পারবে কি, পারবে না- সেটা নিয়ম ও প্রথা মেনেই জানাবেন ফিজিও চন্দ্রমোহন। আমি যতটুকু জানি ফিজিও শেষ কথা বলেননি। তাই রিয়াদের সর্বশেষ অবস্থা জানতে তার শেষ কথাই শুনতে হবে।তার আগে কিছুই নিশ্চিত করে বলার উপায় নেই।’

এদিকে ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন সোমবার প্র্যাকটিস থেকে হোটেলে ফিরে স্থানীয় সময় বিকেল চারটা নাগাদ (বাংলাদেশে তখন রাত ৯ টা)  সাথে আলাপেও নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেননি। তবে আগের দিন যেমন হতাশার বাণী শুনিয়েছিলেন, আজ তার কণ্ঠ ততটা নেতিবাচক ছিল না।

মঙ্গলবার সকালে খেলার আগে একটা ফিটনেস টেস্ট হবে রিয়াদের। সেখানেই বোঝা যাবে তার প্রকৃত অবস্থা কী? তারপরও শেষ খবর, ১৫ জনের দল ছেটে ১৩ তে নামিয়ে আনা হয়েছে। সেই ১৩ জনে আছেন রিয়াদ। পাশাপাশি সাব্বিরকে রাখা হয়েছে। তাকে প্রস্তুত থাকতেও বলা হয়েছে। সাব্বিরও গতকাল নিয়মিত একাদশের ক্রিকেটারের মতই প্র্যাকটিস করেছেন নেটে ব্যাটিংও করেছেন। রিয়াদ খেলতে না পারলে সাব্বির খেলবেন এটা নিশ্চিত।

এদিকে এজবাস্টনের মাঠ ছোট। তবে কি এবার সত্যিই একাদশ থেকে বাদ পড়ছেন মিরাজ?

টনটনের মাঠ আকারে ছিল বেশ ছোট। বিগ হিট নিলেই ছক্কা হতে পারে- বাংলাদেশ আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের আগে সেটা ছিল মুখরোচক আর আলোচিত সংলাপ। অফস্পিনার মিরাজকে বাদ দিয়ে বাড়তি পেসার খেলানোর কথাও উঠেছিল জোরে-শোরে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। মিরাজ ঠিকই খেলেছেন।

কাকতালীয়ভাবে এজবাস্টনে বাংলাদেশ আর ভারত ম্যাচের আগেও সেই মাঠের আকার আকৃতি নিয়ে অনেক কথা। সত্যিই মাঠ কোন কোন অংশে ছোট আছে, এটা নির্ভর করে আসলে কোন পিচে খেলা হবে। তবে যে পিচে ইংল্যান্ড আর ভারত ম্যাচ হয়েছে, সেই পিচেই যেহেতু খেলা, তাই ধরেই নেয়া হচ্ছে মাঠ ছোট। আর ভারতীয়রা স্পিনে দক্ষ। রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি, ধোনি-পান্ডিয়ারা স্পিনে মাস্টার।

ছোট মাঠে তাদের বিপক্ষে বাড়তি স্পিনার নাকি পেসার? কোন ফর্মুলা হবে বেশি কার্যকর? তা নিয়ে আবার জেগেছে সংশয়। এমন হতে পারে অফ স্পিনার মেহেদি মিরাজকে বাইরে নিয়ে পেসার রুবেল হোসেনকে খেলানো হতে পারে।

সোমবার অনুশীলনেও দেখা গেল রুবেল চুটিয়ে বল করছেন। বরং সাইফউদ্দীনকে খানিক নিষ্ক্রিয় মনে হলো। এখন দুটি ঘটনা ঘটতে পারে, এক মিরাজকে বাইরে রেখে মাশরাফি, মোস্তাফিজ আর সাইফউদ্দীনের সাথে চার নম্বর পেসার হিসেবে রুবেলকে খেলানো হতে পারে। না হয় সাইফউদ্দীনকে সরিয়ে রুবেলকে একাদশে আনা হতে পারে।

তবে এর মধ্যে কোনটা ঠিক টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে সে সম্পর্কে কোনোরকম সবুজ সঙ্কেত দেয়া হয়নি। ম্যাচের দিন (আজ) সকালে একাদশ ঠিক করা হবে। তবে ১৩ জনে মিরাজ আর রুবেল দুজনই আছেন। আছেন রিয়াদও।

দেখা যাক তবে ঠিক কোন ফর্মুলায় হাঁটতে যাচ্ছে বাংলাদেশ!