রাষ্ট্র বিরোধী তৎপরতা

রাষ্ট্র বিরোধী তৎপরতা

বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহা নামের এক বাংলাদেশি নারী যে অভিযোগ উত্থাপন করেছেন তা প্রায় সবার কাছে অনাকাঙ্খিত বলে প্রতীয়মান হয়েছে। হোয়াইট হাউসে গিয়ে ট্রাম্পের কাছে তার অভিযোগ, বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টান নিখোঁজ রয়েছেন। তার ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে জমি। ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহার ওই অভিযোগ পেশ করার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর দেশজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র সমালোচনা। বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বক্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে দেশের জনগণের মাঝে। এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, এ ধরনের খবর দেওয়ার পেছনে তার নিশ্চয়ই একটি কারণ ও উদ্দেশ্য রয়েছে। দেশে এলে নিশ্চয়ই আমরা তাকে জিজ্ঞাসা করব।

শনিবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, বাংলাদেশ সরকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহার এই ভয়ঙ্কর মিথ্যা অভিযোগের কঠোর প্রতিবাদ জানাচ্ছে এবং তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। দেশে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের যে কথা তিনি বলেছেন তা একান্তই মনগড়া এবং স্বার্থসিদ্ধির জন্য চরমতম মিথ্যা কথা বৈ অন্য কিছু নয়। প্রিয়া তার বক্তব্যে যেভাবে দেশে সংখ্যা লঘু নিপীড়নের দায় এক তরফাভাবে মুসলিম মৌলবাদীদের ওপর চাপিয়েছেন, তাতে যেমন সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ পায় তেমনি প্রিয়ার বক্তব্যের জন্য পুরো সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে বিষোদগার করলেও তা একই রকম সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষমূলক বলে বিবেচিত হবে। তবে প্রিয়া সাহা এবং তার সঙ্গে আর কারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র করছেন তা খুঁজে বের করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হবে।