রাণীনগরে পরীক্ষামূলক মাল্টা চাষ শুরু

রাণীনগরে পরীক্ষামূলক মাল্টা চাষ শুরু

এসএম সাইফুল ইসলাম, রাণীনগর (নওগাঁ): দেশের উত্তর জনপদের ধান উৎপাদনের জেলা নওগাঁর রাণীনগর উপজেলায় অন্যান্য কৃষি ফসলের পাশাপাশি চলতি মৌসুমে সুস্বাদু পুষ্টিকর রসালো ফল মাল্টা পরীক্ষামূলক চাষ শুরু করেছেন উপজেলা সদরের খট্রেশ্বর গ্রামের ব্যবসায়ী সরফরাজ খান (৫৮)। তার এই সফল মালটা চাষ দেখে এলাকার বেকার যুবকরাও অন্যান্য ফসল চাষের পাশাপাশি মাল্টা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। কৃষি বিভাগ বলছে, রাণীনগর উপজেলার বিশেষ কয়েকটি এলাকায় ভারমিক পদ্ধতিতে বারি-১ মাল্টা চাষের উপযোগী জমিতে চাষ করা হচ্ছে। যেখানে কৃষকরা ধানের পাশাপাশি মাল্টা চাষ শুরু করেছে। তবে দো-আঁশ ও বেলে দো-আঁশ মাটিতে ভালো জাতের মাল্টা গাছের চারা রোপণ করতে পারলে এবং নিবিড় পরিচর্যায় মাল্টার ফলন ভালো হয়। মাল্টা চাষ লাভজনক হওয়ার কারণে রাণীনগরে এবছর প্রায় ৫ হেক্টর জমিতে মাল্টা চাষ হয়েছে। রাণীনগর উপজেলার খট্রেশ্ব গ্রামের ব্যবসায়ী সরফরাজ খান তার পৈত্রিক ১০ কাঠা জমিতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শে তাদের সরবরাহকৃত মাল্টা চারা নিয়ে ভার্মিক পদ্ধতিতে চাষ শুরু করেন। বর্তমানে প্রতিটি গাছে ডগায় ডগায় মাল্টা দোল
                    
খাচ্ছে। তিনি আশা করছেন, এই জমিতে সফলভাবে মাল্টা চাষ করে বাজারজাত করতে পারলে আগামীতে তিনি বড় পরিসরে এই ফসলের দিকে মনোযোগ দিবেন। ইতিমধ্যে তার মাল্টা চাষের সফলতা দেখতে পাচ্ছেন। ২০১৭ সালের দিকে উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শে ১০ কাঠা জমিতে এই মাল্টা চাষ শুরু করেন তিনি। ধান চালের ব্যবসার পাশাপাশি তিনি বাড়ির পার্শ্বে পৈত্রিক জমিতে স্বল্প পরিসরে নানান জাতের সবজি ও ফলদ জাতীয় বৃক্ষের চাষ শুরু করেন। এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে সনফরাজ খান তার বাগান থেকে মাল্টা বিক্রি করে বেশ লাভবান হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। রাণীনগর উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ শহিদুল ইসলাম জানান, সরফরাজের মাল্টা বাগান খুব ভাল হয়েছে। আমাদের পক্ষ থেকে সার্বক্ষনিক যথাযথ পরামর্শ, যথা সময়ে ভাল পরিচর্চা করার ফলে রোগ-বালাই না থাকায় বারি-১ জাতের মাল্টা চাষে ভাল ফলন হচ্ছে এবং বাজারে এর চাহিদা বেশি থাকায় ভাল দাম পেয়ে তিনি লাভবান হবে।