রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ৫ জেএমবি সদস্য আটক

রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ৫ জেএমবি সদস্য আটক

রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে অভিযান চালিয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) পাঁচ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব।

মঙ্গলবার (২৯ মে) দিনগত রাতে র‌্যাব-৫ এর একটি দল এই অভিযান চালায়।

আটক পাঁচ জঙ্গি হলেন- রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার জাহানাবাদ গ্রামের খায়রুল ইসলাম (৪৮), চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার হাকিমপুর গ্রামের সেলিম রেজা (২৬), নরেন্দ্রপুর গ্রামের জিয়াউল হক ওরফে আকবর আলী (৩৯), নওশাদ আলী (৫০) এবং গোটাপাড়া গ্রামের শাকিল আহমেদ (৩৫)।

তাদের কাছ থেকে সাতটি জিহাদি বই, পাঁচটি মোবাইল ফোন, আটটি সিমকার্ড, দু’টি মেমোরি কার্ড, দু’টি জাতীয় পরিচয়পত্র, একটি পাসপোর্ট ও জিহাদি ছবি এবং ভিডিওতে ভরা কম্পিউটারের একটি হার্ডডিস্ক জব্দ করা হয়েছে।

বুধবার (৩০ মে) সকালে র‌্যাব-৫ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহাবুবুল আলম নিজ দফতরে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, গত ১৪ মে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জে অভিযান চালিয়ে চার জেএমবি সদস্যকে আটক করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে গোয়েন্দা অনুসন্ধান চালাতে থাকে র‌্যাব। এক পর্যায়ে র‌্যাব তথ্য পায়, নাশকতার পরিকল্পনা করতে মঙ্গলবার রাতে কয়েকজন জেএমবি সদস্য গোদাগাড়ীতে গোপন বৈঠক করবেন।

বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে র‌্যাব-৫ এর একটি দল উপজেলার ফাজিলপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে খায়রুল ইসলাম ও সেলিম রেজাকে আটক করে। পরে তথ্যের ভিত্তিতে অন্য তিনজনকে তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা সবাই জেএমবির সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। নতুন সদস্য সংগ্রহ এবং ইয়ানতের টাকা আদায় করতেন তারা।

লে. কর্নেল মাহাবুবুল আলম আরো বলেন, আবু সাঈদ নামের এক জেএমবি ক্যাডারের মাধ্যমে আটক পাঁচজন সংগঠনটিতে জড়িয়ে পড়েন। ধীরে ধীরে তারা সক্রিয় কর্মী হিসেবে দায়িত্বশীলদের আস্থাভাজন হয়ে ওঠেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জের নরেন্দ্রপুর এলাকায় দায়িত্বশীল কর্মী হিসেবে নিয়োজিত হয়েছিলেন নওশাদ।

তাদের সবার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান র‌্যাবের এই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।