রমেকের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসকসহ ওষুধ সংকট ঃ রোগীরা দুর্ভোগে

রমেকের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসকসহ ওষুধ সংকট ঃ রোগীরা দুর্ভোগে

রংপুর জেলা প্রতিনিধি: রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগে চিকিৎসকসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। ৭ জন চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও মাত্র একজন চিকিৎসক ও কিছু শিক্ষানবিশদের দিয়ে চলছে গুরুত্বপুর্ণ এই বিভাগটি। এতে প্রয়োজনের সময় চিকিৎসকের কাছ থেকে কাঙ্খিত সেবা না পেয়ে হতাশ রোগীসহ তাদের স্বজনরা।সংশ্লিষ্ট ইউনিট সূত্রে জানা গেছে, খাতা কলমে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের দায়িত্বে সাত চিকিৎসক থাকলেও শুধুমাত্র বিভাগীয় প্রধান এম. এ হামিদ পলাশকেই দেখা যায় সব সময়। বার্ন ইউনিটে কয়েকজন রোগী ও তাদের স্বজনরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, বার্ন ইউনিটে ভালো সেবা নেই। চিকিৎসক নেই আবার চিকিৎসাও ব্যয়বহুল। স্যালাইন ছাড়া হাসপাতাল থেকে আর কিছুই দেওয়া হয় না। তবে শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা এসে মাঝে মধ্যে খোঁজ খবর নিয়ে যান। চলতি শীত মৌসুমে গত এক মাসে এই ইউনিটে এখন পর্যন্ত ৮ নারী ও দুই শিশুসহ ১৩ জন মারা গেছেন। এখনো চিকিৎসাধীন আছেন ২৫ জন।

রমেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিট ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এম এ হামিদ পলাশ জানান, শীত নিবারণে রোগীদের গরম কাপড় ব্যবহার করা জরুরী। আগুন পোহানো ক্ষতিকর। আমরা রোগীদের সেবা দেয়ার জন্যই সবসময় কাজ করছি। প্রয়োজনীয় ওষুধ ছাড়া তাদের নিয়মিত পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। আমরা চিকিৎসক ও প্রয়োজনীয় ঔষধ চেয়ে পরিচালক মহোদয়কে চিঠি দিয়েছি। আসলে রোগী বাড়লে আমাদের ঔষধে ঘাটতি দেখা দেয়। তবে আমরা বিষয়টি মোকাবেলা করছি। রমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. ফরিদুল ইসলাম বলেন, আমরা চিকিৎসক ও ওষুধ বরাদ্দের জন্য বারংবার ডিজি ও ডিডি মহোদয়কে চিঠি প্রেরণ করেছি। আশা করছি দ্রুত সময়ে সমস্যার সমাধান হবে।