রড দিয়ে পিটিয়ে স্কুলশিক্ষক বাবাকে মেরে ফেলল ছেলে

রড দিয়ে পিটিয়ে স্কুলশিক্ষক বাবাকে মেরে ফেলল ছেলে

গাজীপুরের শ্রীপুরে প্রতিবন্ধী স্কুলশিক্ষক বাবাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ছেলের বিরুদ্ধে। সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার গোসিঙ্গা ইউনিয়নের লতিফপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই শিক্ষকের নাম আব্দুল ওয়াদুদ ওরফে বাবুল মাস্টার (৫৫)। তিনি একই গ্রামের মৃত আব্দুল রশিদ মাস্টারের ছেলে এবং শ্রীপুরের পার্শ্ববর্তী কাপাসিয়া উপজেলার তরগাঁও কোহিনুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিত বিষয়ের শিক্ষক ছিলেন। বাবুল মাস্টার ডান পায়ে কৃত্রিম পা লাগিয়ে চলাচল করতেন।


 
এ ঘটনায় অভিযুক্ত তার ছেলে ইমরান হাশমি রাতুলকে (২৬) আটক করেছে পুলিশ। তিনি রাজধানীর উত্তরার ডেফোডিল ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

শ্রীপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান জানান, লতিফপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামে নিজ বাড়িতে রাতে বাবুল মাস্টার ও ছেলে রাতুলের মধ্যে টাকা নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এর একপর্যায়ে ছেলে রাতুল ঘরে থাকা রড দিয়ে বাবাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে ছেলে নিজেই জরুরি সেবা ৯৯৯ ফোন দিয়ে পুলিশকে ঘটনাটি জানায়। পরে পুলিশ ছেলেকে আটক করে এবং বাবাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৩টার দিকে মারা যান বাবুল মাস্টার।

গোসিঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য খোরশীদ আলম (রফিক প্রধান) জানান, রাতুল প্রায়ই টাকার জন্য বাবার সঙ্গে ঝগড়া করতো। বাবুল মাস্টার প্রতি মাসে রাতুলের চাহিদা মোতাবেক টাকা দিতেন। অতিরিক্ত টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলেই তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো।

শ্রীপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।