যুক্তরাজ্যে ৯৯৯–এর এ কী কাণ্ড!

যুক্তরাজ্যে ৯৯৯–এর এ কী কাণ্ড!

দ্রুত সেবা নিশ্চিত করায় যুক্তরাজ্যের জরুরি পরিষেবার নম্বর ৯৯৯-এর সুনাম অনেক। কিন্তু দেশটির ডেভন কাউন্টির বন্দরনগরী এক্সমুথের একটি পরিবারের ক্ষেত্রে ঘটেছে ঠিক উল্টোটাই। পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হওয়া এক বৃদ্ধার পরিবার ৯৯৯-এ ফোন করে অ্যাম্বুলেন্সের দেখা পেয়েছে প্রায় সাত ঘণ্টা পর। এর আগেই বৃদ্ধার ছেলে লন্ডন থেকে ২০০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে বাড়ি পৌঁছে যান।

ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার। এক্সমুথের বাসিন্দা মার্ক ক্লেমেন্টসের বৃদ্ধ মা (৭৭) গত শনিবার সকাল নয়টার দিকে পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হন। কোমর ভেঙে যায় তাঁর। ক্লেমেন্টস তখন লন্ডনে। দুর্ঘটনার খবর পেয়েই তিনি রওনা হন। বাড়ি পৌঁছাতে তিনি বাস, মেট্রো ও দুটি ট্রেন পরিবর্তন করেন। সময় লেগেছে ৩ ঘণ্টা ৪০ মিনিট।

Eprothom Aloক্লেমেন্টস বলেন, ‘মা আহত হওয়ার পর আমার আত্মীয়রা ৯৯৯-এ ছয়বার ফোন করেন। কিন্তু সাত ঘণ্টার আগে কোনো অ্যাম্বুলেন্সের দেখা পাইনি আমরা। আমি বাড়ি পৌঁছানোর ৫০ মিনিট পর অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছায়। তখন বেলা ৩টা বেজে ১০ মিনিট।’

সাউথ ওয়েস্টার্ন অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের (এসডব্লিউএএসএফটি) লোকজন যখন ক্লেমেন্টসদের বাড়িতে পৌঁছান, তাঁরাও রোগীর অবস্থা দেখে মর্মাহত হন। দুঃখ প্রকাশও করেন তাঁরা।

কর্তৃপক্ষের যুক্তি, চলতি সপ্তাহে অ্যাম্বুলেন্সের চাহিদা বেড়ে গেছে। তাঁরা কুলিয়ে উঠতে পারছেন না। দেরি হওয়ার কারণ সম্পর্কে তাঁরা বলেন, আরও গুরুতর রোগীকে অগ্রাধিকার দিতে গিয়ে তাঁরা সঠিক সময়ে পৌঁছাতে পারেননি।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, জরুরি রোগীদের (ক্যাটাগরি-১) ক্ষেত্রে সাউথ ওয়েস্টার্নের অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছানোর গড় সময় গত বছর ছিল ৭ মিনিট ২৬ সেকেন্ড। ক্লেমেন্টসের মাকে তাঁরা ক্যাটাগরি-৪ (কম জরুরি) ভেবেছিলেন।