মৃত যুবকের কিডনি-লিভারে প্রাণ বাঁচল ৪ জনের

মৃত যুবকের কিডনি-লিভারে প্রাণ বাঁচল ৪ জনের

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত এক যুবকের কিডনি, লিভার এবং হৃৎপিণ্ড দিয়ে আরও চারজনের জীবন বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। নিজের জীবন শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও বহু মানুষের মধ্যে বেঁচে থাকার উদ্দেশ্যেই শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গ দান করেছেন ওই যুবক। এই ঘটনা ঘটেছে ভারতের কলকাতা শহরে।

বাইক দুর্ঘটনায় নিহত চিন্ময় ঘোষের হৃৎপিণ্ড, দুটি কিডনি এবং লিভার নিয়ে বেঁচে রইলেন আরও চারজন। একটি লরির সঙ্গে বাইকের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন বাইকের পেছনে থাকা বর্ধমান জেলার মেমারির বাসিন্দা ৩৬ বছর বয়সী চিন্ময়।


গত বুধবার তাকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে চিন্ময়কে নিয়ে আসা হয় কলকাতার একটি বেসরকারি নার্সিং হোমে। সেখানেই সোমবার বিকেলে জানানো হয়, চিন্ময়ের মস্তিষ্ক কার্যক্ষমতা হারিয়েছে। হাসপাতালের এক মুখপাত্র জানান, চিন্ময়ের মৃত্যুর পরেই পরিবার তার অঙ্গ দান করার সিদ্ধান্ত নেয়।

চিন্ময়ের হৃৎপিণ্ড পেয়েছেন ডানকুনির বাসিন্দা ২৫ বছর বয়সী যুবক সুরজিত পাত্র। কলকাতা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজে চিকিত্সা চলছে তার। চিন্ময়ের দুটি কিডনির একটি প্রতিস্থাপণ করা হয়েছে ১৯ বছর বয়সী তরুণী রুমা কুমারী ধানুর শরীরে।

শহরেরই একবালপুর এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন রুমা। অন্যদিকে, অন্য কিডনিটি দান করা হয়েছে কলকাতারই ৫৬ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে। দীর্ঘদিন ধরেই কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। ইএম বাইপাস সংলগ্ন একটি বেসরকারি হাসপাতালে ওই কিডনি প্রতিস্থাপিত হবে।

মৃত চিন্ময়ের লিভার প্রতিস্থাপিত করা হয়েছে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি থাকা ৫৪ বছর বয়সী বনগাঁর বাসিন্দা বিধান অধিকারীর দেহে।

মৃত চিন্ময়ের ভাই বলেন, আমরা আমার ভাইয়ের অঙ্গ দান করতে পেরে খুবই খুশি। আমাদের বিশ্বাস, ভাই এভাবেই বেঁচে থাকবেন। ও নেই তো কী আছে, ওর শরীরের অংশেই এতগুলো মানুষ নতুন জীবন পেয়েছেন।