মাশরাফিতে মুগ্ধ হাবিবুল বাশার

মাশরাফিতে মুগ্ধ হাবিবুল বাশার

দীর্ঘদিন ধরেই রয়েছেন ক্রিকেটের বাইরে। বিশ্বকাপের পর আর কোনও প্রতিযোগিতা মূলক ম্যাচে খেলা হয়নি ওয়ানডে অধিনায়কের। তবে বসে থাকেননি। নিজেকে ফিট রাখার জন্য লড়াই করেছেন নিজের সঙ্গে।
এই লড়াইয়েও বাধা ছিল চোট। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে অনুশীলন করতে পারেননি। আবারও ফিরেছেন মাঠে। আজ শনিবার বোলিংয়ে ফিরেছেন। ঢাকা প্লাটুনের সতীর্থ তামিম ইকবালকে বোলিং করেছেন চার ওভার।
মাশরাফির নিজেকে ফিরে পাবার লড়াই দেখে যেমন ঢাকা প্লাটুনের কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বললেন, আমার চেয়ে মাশরাফি বেশি মোটিভেটেড। সে আজকে থেকে প্র্যাক্টিস শুরু করেনি, অনেকদিন ধরেই ব্যক্তিগতভাবে ফিট হওয়ার জন্য অনেক কিছু করতেছিল। কেউ হয়তো দেখেনি। শরীরের ওজন অনেক কমিয়েছে। আমার মনে হয় সে আমার চেয়ে কিংবা আমার টিমের চেয়ে ভালো করার জন্য বেশি মোটিভেটেড।
কোচের চোখে মাশরাফি যেমনই হোক, জাতীয় দলের নির্বাচক হাবিবুল বাশারও মুগ্ধ মাশরাফিতে। ওয়ানডে অধিনায়ক ব্যক্তিগতভাবেই অনুশীলন করেছেন দীর্ঘদিন। এই ব্যাপারটা খেয়াল করেছেন সাবেক অধিনায়কও।
‘মাশরাফি কিন্তু অনেকদিন ধরে ট্রেনিং করছে; কেউ জানে না। ফাঁকে ফাঁকে চুপি চুপি করে যাচ্ছে। মাশরাফির বোলিংয়ে অভিজ্ঞতা বলেন সামর্থ্য বলেন এটা তো কখনো কমেনি। কখনও কমবেও না। ওর ফিটনেসটা ইস্যু। ফিটনেস নিয়ে ও কাজ করছে। আমি কয়েকদিন আগে দেখলাম ওজনটাও কমিয়ে ফেলেছে। লুকস লাইক হি সিরিয়াস। আমি শিওর যে এই বিপিএলটাও খুব ভালো খেলবে। কারণ ওর খেলার আগ্রহটা এখনো মরে যায়নি।’
আসন্ন বিপিএলে মাশরাফিকে নিয়ে আশাবাদী হাবিবুল বাশার। ওয়ানডে অধিনায়ককে দলে নিয়ে নিয়েছে ঢাকা প্লাটুন। সাধুবাদ জানান তাদেরও। হাবিবুলের মতে, বিপিএল দিয়েই জাতীয় দলে ফিরতে পারবেন শতভাগ ফিট হয়ে।
‘আমি মনে করি সে এখনও ক্রিকেট খেলতে চায় এবং ও যখন খেলে সেরাটাই খেলতে চায়। এটাই হলো মাশরাফির সাথে বাকিদের পার্থক্য। ওকে যে দল নিয়েছে আমি মনে করি এটা গুড জব। বিপিএল ও ভালোই খেলবে। যেটা আমাদের জন্য খুব ভালো খবর। বিপিএলের পরপরই হয়তো আমাদের সিরিজগুলো শুরু হয়ে যাবে তখন সুস্থ ও তৈরি মাশরাফিকে আমরা পাব।’