মাশরাফি একটা হীরার টুকরা: শেখ হাসিনা

মাশরাফি একটা হীরার টুকরা: শেখ হাসিনা

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অনেক জয়ের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে ভোট দিয়ে জয় এনে দিতে নড়াইল-২ আসনের ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার ঢাকার সুধা সদন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নড়াইলের লোহাগড়া সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয় মাঠে মাশরাফির নির্বাচনী জনসভায় যোগ দিয়ে নৌকার এই প্রার্থীকে তিনি পরিচয় করিয়ে দেন ‘হীরার টুকরা’ বলে।

শেখ হাসিনা বলেন, “মাশরাফি একটা হীরার টুকরা। একটাই হীরার টুকরা নড়াইল থেকে আমরা নিয়ে এসেছি। আবার নড়াইলে দিলাম। আপনারা ভোট দিয়ে মাশরাফিকে জয়যুক্ত করবেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল আগামীতে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ান হবে ইনশাল্লাহ।”

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “আমরা অতীতে বিজয়ের মাসে নির্বাচন করেছি, বিজয়ী হয়েছি। এবারও নির্বাচন করছি এবং জয়যুক্ত হব ইনশাল্লাহ। ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন।”

নড়াইলবাসীর কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “নড়াইল-১ ও ২ আমার নিজের সংসদীয় আসন। অতীতে নড়াইল থেকে নির্বাচন করে এমপি হয়েছিলাম। নড়াইল থেকে নির্বাচিত হয়েছিলাম। কিন্তু একটার বেশি আসন রাখা যায়নি। তাই ছেড়ে দিয়েছিলাম। আমি যত দিন বেঁচে আছি, নড়াইলের এমপিই থাকব। আপনারা নড়াইলের দুটি আসনেই নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করবেন।”

ভিডিও কনফারেন্সে জনসভায় যোগ দিয়ে নড়াইল-১ আসনে নৌকার প্রার্থী বি এম কবিরুল হক মুক্তি ও নড়াইল-২ আসনের প্রার্থী মাশরাফি বিন মুর্তজাকে ভোটারদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন শেখ হাসিনা।

কবিরুল হক মুক্তি এ সময় লোহাগড়া সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয় মাঠের জনসভায় উপস্থিত থাকলেও বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি ছিলেন সুধা সদনে প্রধানমন্ত্রীর পাশে।

শেখ হাসিনা বলেন, “মাশরাফি খেলায় ব্যস্ত ছিল। তাই নড়াইলে যেতে পরেনি। আমি ওকে বলে দিয়েছি, তোমার নির্বাচন নিয়ে ভাবতে হবে না। তুমি খেলায় মনোযোগ দাও। দেশকে বিজয়ী করো।”

খেলার মাঠ থেকে ভোটের মাঠে আসা মাশরাফি নিজের নির্বাচনী জনসভার প্রথম বক্তৃতাটি ভিডিও কনফারেন্সেই দিয়েছেন।

তিনি বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে নড়াইলবাসীর সেবা করা সুযোগ দিয়েছেন। সেজন্য আমি কৃতজ্ঞ। আপনারা স্বাধীনতার পক্ষে থাকুন। নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ওপর আস্থা রাখবেন।”

মাশরাফি তার অনুপস্থিতিতে ভোটের কাজ চালিয়ে নেওয়ায় নড়াইল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, “আমি নড়াইলের সন্তান। আপনারা যদি আমাকে যোগ্য মনে করেন তাহলে আমাকে বিবেচনা করবেন। নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন।”

নড়াইল-১ আসনের প্রাথী কবিরুল হক মুক্তি ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক নিজামউদ্দিন খান নিলু, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, নড়াইল পৌরসভার মেয়র বিশ্বাস জাহাঙ্গীর আলম জনসভায় উপস্থিত ছিলেন।