মাঝ আকাশে বিমানে আগুন, নিহত ৪১

মাঝ আকাশে বিমানে আগুন, নিহত ৪১

রাশিয়ার মস্কোর সেরেমেতেভো বিমানবন্দরে রোববার জরুরি অবতরণের সময় যাত্রীবাহী একটি বিমানে আগুন লেগে শিশুসহ অন্তত ৪১ জন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া আহত ছয়জনের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রাশিয়ার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি বলছে, বিমানটি মস্কো বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করার আগেই মধ্য আকাশে থাকার সময়ই আগুন লেগে যায়।


সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বেশ কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, অগ্নিদগ্ধ বিমানটি থেকে নেমে আরোহীরা জরুরি নির্গমণ পথ দিয়ে দৌড়ে নিরাপদে স্থানে যাচ্ছেন।

তবে বিমানে থাকা মোট ৭৮ জন যাত্রীর মধ্যে ৩৭ জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইতোমধ্যে মর্মান্তিক এই বিমান দুর্ঘটনার তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন।

রুশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রধান ভেরোনিকা স্কভোরটোশোভা এক বিবৃতিতে বলেন, ছয়জন আহত ব্যক্তি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তাদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আরও পড়ুন>> জরুরি অবতরণের আগেই রুশ বিমানে আগুন, নিহত ১৩

বিমানটি উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় মারমানস্কের দিকে যাওয়ার কথা ছিল। একই সঙ্গে বিমানটি জরুরি অবতরণের ক্ষেত্রেও প্রথম দফায় সফল হয়নি।

অবশ্য রাশিয়ার জাতীয় বিমান পরিবহন সংস্থা অ্যারোফ্লট বলছে, কারিগরি ত্রুটির কারণে বিমানটি জরুরি বিমানবন্দরে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছিল। তবে তারা এর বেশি এ সম্পর্কে আর কিছু জানায়নি।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলছেন, প্রাণে রক্ষা পাওয়াটা একটা ‘আশ্চর্য’ ঘটনা। আগুনে বিমানটির পেছনের অংশ সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। তবে এতো বড় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা কীভাবে ঘটলো কিংবা পাইলট কেনো বিমানটি জরুরি অবতরণ করতে চেয়েছিলেন তা এখনো জানা যায়নি।

বিমানটি ছিল রুশ প্রযুক্তিতে তৈরি সুখোই সুপারজেট-১০০ সেরেমেতেভো বিমানবন্দরে থেকে মুরমানস্ক শহরের উদ্দেশে উড্ডয়ন করে। উড্ডয়নের পর ৩০ মিনিটের মধ্যেই কারিগরি ত্রুটির কবলে পড়লে সতর্ক বার্তা জারি করে বিমানটি জরুরি অবতরণ করার সময় দুর্ঘটনাটি ঘটে।