ভোটের জন্য চমৎকার প্রস্তুতি: আইজিপি

ভোটের জন্য চমৎকার প্রস্তুতি: আইজিপি

একাদশ সংসদ নির্বাচন ঘিরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রস্তুতি অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে ভালো বলে দাবি করেছেন পুলিশ প্রধান মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

তিনি বলেছেন, “নির্বাচনে আমাদের সর্বোচ্চতম প্রস্তুতি রয়েছে। সমন্বয় ও প্রস্তুতি সর্বকালের মধ্যে সবচেয়ে চমৎকার।”

পুলিশের বিরুদ্ধে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফন্টের একের পর এক অভিযোগের মধ্যে বৃহস্পতিবার সিইসি কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে বৈঠকের পর জাবেদ পাটোয়ারী সাংবাদিকদের একথা বলেন।

৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনের শুরু থেকে পুলিশের বিরুদ্ধে নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার-হয়রানি ও প্রচারে বাধা দেওয়ার অভিযোগ করে আসছে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট।

সম্প্রতি বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ইসিতে অভিযোগ দেওয়ার পর সাংবাদিকদের বলেছিলেন, “মনে হচ্ছে আওয়ামী লীগ নয়, পুলিশই আমাদের প্রতিপক্ষ।”

পুলিশের ভূমিকায় সিইসির সায় থাকলেও অভিযোগ ওঠায় বুধবার চারটি থানার ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়া হয় ইসির পক্ষ থেকে।

পুলিশ মহাপরিদর্শক জাবেদ বলেন, “নির্বাচনে এখন পর্যন্ত যে পরিবেশ আছে, সেরকম শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় থাকলে জাতিকে একটি সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারব।”

বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ পাওয়া গেলে পুলিশ ব্যবস্থা নিচ্ছে। তবে ঢালাও যে অভিযোগ, এরকম কিছু আমাদের কাছে নেই।”

পুলিশ নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মানছে না বলে ঐক্যফ্রন্টের অভিযোগের বিষয়ে আইজিপি বলেন, “এমন অভিযোগ অবাস্তব। শুধু পুলিশ নয়, সমস্ত প্রশাসনই এখন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে।”

নির্বাচন ভবনে আসার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নির্বাচন নিয়ে বাহিনীর পরিকল্পনা ও সর্বশেষ পরিস্থিতি নির্বাচন কমিশনকে জানাতে এসেছিলেন তারা।

আইজিপির সঙ্গে ছিলেন পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মোখলেসুর রহমান, এসবির প্রধান শহীদুল ইসলাম, ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম ও উপ-কমিশনার প্রলয় কুমার জোয়ারদার।

এবারের নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করবে পুলিশ বাহিনীর এক লাখের বেশি সদস্য। এছাড়া গ্রাম পুলিশ, আনসার, র‌্যাব, বিজিবিও মোতায়েন হয়েছে। সেনাসদস্যরা নির্বাচনী দায়িত্ব শুরু করবে ২৪ ডিসেম্বর থেকে।