ভোট পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর

ভোট পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর

বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচন পেছানোর দাবির প্রেক্ষিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা জানিয়েছেন, নির্বাচন কমিশন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল পেছানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘আমরা তফসিল পুনঃনির্ধারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র দাখিল করা যাবে। ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণ হবে।’

সোমবার (১২ নভেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) ইভিএম মেলার উদ্বোধনী পর্ব শেষে সিইসি এ কথা বলেন।

গত ৮ নভেম্বর ঘোষিত তফসিলে সিইসি জানিয়েছিলেন, নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু নির্বাচনে যাওয়া-না যাওয়া নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতার পর রোববার (১১ নভেম্বর) বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংবাদ সম্মেলন করে জানায়, তারা ভোটে যাচ্ছে, তবে এক্ষেত্রে তারা এক মাস ভোট পেছানোর দাবি জানায়।

সিইসি বলেন, জাতীয় এক্যফ্রন্টসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অনুরোধের প্রেক্ষিতে নির্বাচনের তারিখ বদল করে ৩০ ডিসেস্বর করা হয়েছে। আর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় পরিবর্তন করে ২৮ নভেস্বর করা হয়েছে। সকালে কমিশনাররা বসে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। বাকি তারিখগুলো কাল বসে নির্ধারণ করা হবে।

আগের তফসিল অনুযায়ী, মনোননয়নপত্র জমার সময় ছিল ১৯ নভেম্বর, বাছাই ২২ নভেম্বর আর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের তারিখ বেধে দেওয়া হয় ২৯ নভেম্বর।

ইভিএম মেলায় নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, কোনো গোয়ালা তার দই খারাপ বলে না। আমরাও বলবো না ইভিএম পদ্ধতি খারাপ। তাই আপনাদের মতামতের জন্য এই মেলা করা হয়েছে। আমরা আপনাদের সিদ্ধান্তের উপর ভিত্তি করে একাদশ জতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করবো।

মেলার উদ্বোধনী পর্বে অন্য নির্বাচন কমিশনাররা এবং ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এসময় উন্মুক্ত আলোচনায় আগত দর্শনার্থীদের মতামত গ্রহণ করে নির্বাচন কমিশন।