ভারতকে ১৬৫ রানে থামিয়ে দ্বিতীয় দিনেই চালকের আসনে কিউইরা

ভারতকে ১৬৫ রানে থামিয়ে দ্বিতীয় দিনেই চালকের আসনে কিউইরা

ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে সবুজ পিচ বানিয়ে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের বড় পরীক্ষাই নিল স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড। সেই পরীক্ষায় উৎরাতে পারেননি সফরকারি ব্যাটসম্যানরা।

টিম সাউদি আর কাইল জেমিসনের গতিতে নাকাল ভারত প্রথম ইনিংসে গুটিয়ে গেছে ১৬৫ রানেই। দলের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে কেউ হাফসেঞ্চুরিও করতে পারেননি।


 
৫ উইকেটে ১২২ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে ভারত। ১০ রান নিয়ে খেলতে নামা রিশাভ পান্ত ১৯ রানের মাথায় রানআউটের কবলে পড়েন। টিম সাউদির করা ওই ওভারের পরের বলেই বোল্ড হন রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

এক ওভার বিরতি দিয়ে সেট ব্যাটসম্যান আজিঙ্কা রাহানের উইকেটটিও তুলে নেন সাউদি। ১৩৮ বলে ৫ বাউন্ডারিতে ৪৬ রান করে রাহানে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলে শেষ আশাটাও শেষ হয়ে যায় ভারতের। পরে লোয়ার অর্ডারের মোহাম্মদ শামি ২০ বলে ২১ রানের ঝড় তুললে ৬৮.১ ওভারে ১৬৫ রানে থামে ভারতের প্রথম ইনিংস।

টিম সাউদি আর কাইল জেমিসন-দুই পেসারই নেন ৪টি করে উইকেট। একটি উইকেট পকেটে পুড়েন আরেক পেসার ট্রেন্ট বোল্টের।

জবাব দিতে নেমে ২ উইকেট হারিয়েই লিডের খাতা খুলে ফেলে নিউজিল্যান্ড। দুই ওপেনার টম লাথাম (১১) আর টম ব্লান্ডেল (৩০) ইনিংস বড় করতে না পারলেও তৃতীয় উইকেটে ধাক্কা সামলে ওঠে নিউজিল্যান্ড।


লাথাম আর ব্লান্ডেলকে সাজঘরের পথ দেখান ইশান্ত শর্মা। এরপর তৃতীয় উইকেটে ৯৩ রানের জুটি গড়েন কেন উইলিয়ামসন-রস টেলর। একটা সময় ২ উইকেটেই ১৬৬ রান তুলে ফেলেছিল নিউজিল্যান্ড।

থিতু হওয়া জুটিটি ভাঙেন সেই ইশান্ত। রস টেলরকে (৪৪) শর্ট লেগে চেতেশ্বর পূজারার ক্যাচ বানান দীর্ঘকায় এই পেসার। তবে উইলিয়ামসন সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন।

১১ রানের জন্য ম্যাজিক ফিগার ছোঁয়া হয়নি কিউই অধিনায়কের। মোহাম্মদ শামিকে ড্রাইভ করতে গিয়ে কভারে বদলি ফিল্ডার রবীন্দ্র জাদেজার দুর্দান্ত ক্যাচ হন তিনি। ১৫৩ বল মোকাবেলায় ১১ বাউন্ডারিতে উইলিয়ামসন তখন ৮৯ রানে।
 
এরপর ইনিংস মেরামতের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন হেনরি নিকোলস আর বিজে ওয়াটলিং। তবে ৬২ বলে ১৭ রান করে অনেকটাই সেট হয়ে যাওয়া নিকোলসকে দিনের শেষভাগে এসে সাজঘরে ফেরান রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২১৬ রান। বিজে ওয়াটলিং ১৪ আর কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম ৪ রান নিয়ে তৃতীয় দিন খেলতে নামবেন।