ভল্টের সোনা কারসাজি সরকারি লুটের আলামত : মোশাররফ

ভল্টের সোনা কারসাজি সরকারি লুটের আলামত : মোশাররফ

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টের সোনা কারসাজির ঘটনাটি সরকারি লুটের আলামত বলে এর নিন্দা জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন।  মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভল্টে তিন বছর আগে জমা রাখা সোনার ওজন কমে যাওয়া নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের প্রতিক্রিয়ায় এই মন্তব্য করেন তিনি।

মোশাররফ হোসেন বলেন, মঙ্গলবার একটি পত্রিকায় দেখলাম-বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে ভুতুড়ে কান্ড। ৯৬৩ কেজি সোনা ভল্টে জমা ছিল। ছিল সোনার চাকতি, হয়ে গেছে মিশ্র ধাতু। ২২ ক্যারেট সোনা হয়ে গেছে ১৮ ক্যারেট সোনা। বাংলাদেশ ব্যাংকে এর আগে রির্জাভ চুরি হলো, আবার ব্যাংকের ভল্টে এই ধরণের ঘটনা- এটা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক। এগুলো কিসের আলামত? এগুলো হচ্ছে স্বৈরাচারী সরকারের আলামত।

তারা দেশটাকে লুটেপুটে খাওয়ার জন্যে যেখানে যা করা দরকার তা আজকে করছে। ২০১৬ সালে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির প্রসঙ্গ টেনে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক কী ব্যবস্থা নিচ্ছে তা আমরা দেখার জন্য অপেক্ষা করছি। আমরা বলতে চাই- বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি হওয়ার পরে যেভাবে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে, এই ভল্টের কারসাজির পর আবার যদি এ রকমের ধামাচাপা দেওয়া হয়- তাহলে জনগণের কাছে একদিন তাদের সকলকে জবাবদিহি করতে হবে। তিনি বলেন, বিএনপি, বেগম খালেদা জিয়া ও জনগণকে ছাড়া নির্বাচন করার জন্য এই সরকার নীল নকশা আঁটছে। এ থেকে দেশকে মুক্ত করতে হলে এই স্বৈরাচারী সরকারকে বিদায় করতে হবে।

বাংলাদেশ ইয়ূথ ফোরাম আয়োজিত আলোচনা সভায় সংগঠনের উপদেষ্টা মেহেদি হাসান পলাশের সভাপতিত্বে এবং সভাপতি সাইদুর রহমানের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক এমপি আহসান হাবিব লিংকন, বিএনপির আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ প্রমুখ।