ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফিরেছেন ৯ হাজার প্রবাসী, হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৪ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফিরেছেন ৯ হাজার প্রবাসী, হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৪ জন

 বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে গত দু-সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ফিরেছেন প্রায় ৯ হাজার প্রবাসী। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে গত ১ মার্চ থেকে তারা দেশে ফিরেছেন। এর মধ্যে গত ১ মার্চ থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত ৮ হাজার ৭৬৭ জন এবং ১৬ মার্চ থেকে ১৭ মার্চ পর্যন্ত ২০৭ জন দেশে ফিরেছেন।

গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) রাতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পাঠানো এক ইমেইল বার্তায় প্রবাস ফেরতদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে নিয়মিত প্রতিবেদন পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সতকর্তামূলক হিসেবে বিদেশ ফেরত এসব প্রবাসীদের সবাইকে ১৪ দিন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা। কিন্তু বুধবার (১৮ মার্চ) পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় মাত্র ১৪ জনকে রাখা হয়েছে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে ১২ জনই ইতালি থেকে দেশে ফিরেছেন। বাকি দুইজন এসেছেন সৌদি আরব ও ক্রোয়েশিয়া থেকে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১ মার্চ থেকে গত ১৭ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাসিন্দা ৮ হাজার ৯৭৪ জন প্রবাসী দেশে ফিরেছেন। ইতিমধ্যেই প্রবাসীরা তাদের নিজ-নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ইমেইল বার্তায় জানানো হয়েছে। তারা সবাই করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে ফিরেছেন বলেও ওই বার্তায় উল্লেখ করা হয়। এছাড়া প্রবাসীদেরকে দেশে আসার তারিখ থেকে পরবর্তী ১৪ দিন পর্যন্ত তাদেরকে হোম কোয়ারান্টাইনে রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জন কন্ট্রোল অফিসের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করে হোম কোয়ারান্টাইন বিষয়ে ও তাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত তথ্য প্রেরণ করার জন্যে পুলিশে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের এই নির্দেশনার চিঠি ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছে জেলা পুলিশ।


এদিকে, হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার সরকারি আদেশ অমান্য করায় জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামে ওমান ফেরত এক যুবককে ও জেলার আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের ছতুরা শরীফ গ্রামের ইটালী প্রবাসী এক যুবককে বুধবার (১৮ মার্চ) দুপুরে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বাঞ্ছারামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. নাসির উদ্দিন সারোয়ার ও আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তাহমিনা আক্তার রেইনা বুধবার দুপুরে পৃথক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ওই দুই যুবককে পাঁচ হাজার টাকা করে দশ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত থেকে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, গত মঙ্গলবার রাতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রবাস ফেরতদের তালিকা পেয়েছি। নির্দেশনা মোতাবেক ওই তালিকা জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনকে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেক থানার অফিসার ইনচার্জকে (ওসি) তালিকা পাঠিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে যারা মার্চ মাসে বিদেশ থেকে দেশে ফিরেছেন তাদের একটি তালিকা পেয়েছি। প্রবাসীদের প্রতি খেয়াল রাখার জন্য ওই চিঠিতে বলা হয়েছে। আমরা এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহ আলম বলেন, মার্চ মাসে বিমানযোগে বিভিন্ন দেশ থেকে ফেরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রবাসীদের তালিকা আমরা পেয়েছি। ওই তালিকা থেকে তাদেরকে খুঁজে বের করে হোমকোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করা হবে। বৃহস্পতিবার থেকে হোমকোয়ারেন্টাইন অনেক বেড়ে যাবে।

তিনি আরো বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় আরো কিছু পদক্ষেপ নেয়া হবে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে মাঠ পর্যায়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে হোম কোয়ারেন্টাইন আরো জোরদার করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, যাদের দেশে ফেরার ১৪ দিন অতিক্রম হয়েছে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার দরকার নেই। যাদের অতিক্রম হয়নি তাদেরকে খুঁজে বের করে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি আরো বলেন, আমরা সবাইকে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকার আহবান জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় আমরা জেলার প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গঠন করেছি। যারা বিদেশ থেকে এসেছেন তাদের ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। বিদেশ ফেরত কেউ যদি হোম কোয়ারেন্টাইনে না থাকতে চান তাকে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে বাধ্য করা হবে। তালিকা ধরে প্রত্যেকের ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, হোমকোয়ারেন্টাইনে নির্দেশনা না মানায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দুই যুবককে অর্থদণ্ডে দন্ডিত করা হয়েছে