বৈশ্বিক শ্রমবাজার সম্প্রসারণে উদ্যোগ জরুরি

বৈশ্বিক শ্রমবাজার সম্প্রসারণে উদ্যোগ জরুরি

রায়হান আহমেদ তপাদার : দেশের প্রায় এক কোটি মানুষ দুনিয়ার বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন। এর সিংহভাগ বিদেশে অবস্থান করছেন শ্রমজীবী হিসেবে। অন্যরা বিদেশে ব্যবসা বা অন্যান্য পেশায় নিয়োজিত। দু-এক জন ছাড়া বিদেশে অবস্থানরত ৯৯ শতাংশের বেশি বাংলাদেশির সঙ্গে শিকড়ের সম্পর্ক বিদ্যমান। প্রবাসীরা তাদের আয়ের এক বড় অংশ রেমিট্যান্স হিসেবে পাঠান স্বজনদের কাছে। দেশের অর্থনীতি আজ সম্মানজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের বদৌলতে। কিন্তু বিদেশে বাংলাদেশের কূটনৈতিক মিশনগুলো প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের প্রতি আদৌ কোনো দায়বোধ করে কিনা তা প্রশ্নের বিষয়। প্রবাসীদের সঙ্গে তাদের আচরণ সামন্ত যুগের জমিদারদের মতো। সূবর্ণ সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগ কাঙ্খিত পর্যায়ে উন্নীত হচ্ছে না বিদেশি বিনিয়োগ কারীদের কাছে বাংলাদেশকে যথার্থভাবে উপস্থাপনের অভাবে। বাংলাদেশের মিশনগুলোয় প্রবাসীরা কোনো কাজে গেলে তাদের যথাযথভাবে সহযোগিতা করা হয় না এটি ওপেন সিক্রেট। অন্য দেশের লোকেরা যখন দেখেন বাংলাদেশিরা নিজ দেশের দূতাবাসেই সম্মান পান না, তখন সে দেশের মানুষজনও বাংলাদেশি কর্মীদের অবজ্ঞা-অসম্মান করার সুযোগ পায়।
জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচ আরসি বছরখানেক আগে তাদের বার্ষিক রিপোর্টে এ বিষয়ে নিজেদের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেছিল। সেই পর্যবেক্ষণে তারা বলেছে, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশি শ্রমিকদের যে অধিকার বঞ্চনার ঘটনা ঘটছে, তা মোকাবেলায় দূতাবাসগুলোর সহযোগিতা সীমিত।
একই সঙ্গে এও বলেছিল যে, দূতাবাসের যারা সেবা দিচ্ছেন তাদের আরও দক্ষ ও প্রশিক্ষিত হতে হবে। বিভিন্ন দেশের কারাগারে বন্দিদের কথাই ধরা যাক। গত বছরের ফেব্র“য়ারিতে সংসদে সে সময়কার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, বিশ্বের ৩৮টি দেশের বিভিন্ন কারাগারে মোট ৯ হাজার ৬৪০ জন বন্দি অবস্থায় আছেন। কারাগারে বন্দিদের বেশিরভাগই কর্মের সন্ধানে গিয়েছিলেন বিভিন্ন দেশে। বন্দি পরিবারগুলো মনে করে, দূতাবাসগুলোর প্রয়োজনীয় সহযোগিতা পেলে তাদের স্বজনরা সহজেই দেশে ফিরে আসতে পারবে। তবে এটাও সঠিক, আমাদের কিছু কিছু কর্মি বিভিন্ন দেশে অবস্থানকালে সেদেশের নিয়মনীতি না মানা, অননুমোদিতভাবে কর্মস্থল পরিবর্তন, চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও ফিরে না আসায় সংশ্নিষ্ট দেশগুলোতে তাদের আইনের মুখোমুখি হতে হয়।কিন্তু দূতাবাসগুলোর সেবার অপর্যাপ্ততা ও সীমাবদ্ধতা নিয়ে প্রবাসীদের অভিযোগ প্রায় সময় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। সৌদি আরব, ইরাক, কুয়েত, আরব আমিরাত, জর্ডান, লেবানন, মালয়েশিয়াসহ অনেক দেশে অবস্থানরত ভুক্তভোগী শ্রমিকরা অভিযোগ করে আসছে, দূতাবাসগুলোর সেবা প্রয়োজনের তুলনায় অপর্যাপ্ত। ভুক্তভোগী শ্রমিকদের আইনি সেবা ও সহযোগিতা প্রদানের ক্ষেত্রে আমাদের দূতাবাসগুলো এখনও অন্য দেশের মতো মানবিক হতে পারেনি। একই সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত নারী শ্রমিকদের সুরক্ষায় দায়িত্বশীলতার অভাবের অভিযোগও বারবার উত্থাপিত হচ্ছে।
আমরা এখন প্রায়ই দেখতে পাচ্ছি, সৌদি আরব, জর্ডান, লেবানন থেকে নারী কর্মিরা কর্মক্ষেত্রে নানা বঞ্চনার শিকার হয়ে নিঃস্ব-রিক্ত হয়ে দেশে ফিরে আসছেন। তারা বারবারই দূতাবাসগুলোসহ প্রেরিত রিক্রুটিং এজেন্সির বিরুদ্ধে অসহযোগিতা, অমানবিকতার অভিযোগ করছেন। যদিও এসব নারীকর্মিকে নির্যাতন ও হয়রানি থেকে রক্ষার জন্য আমাদের দূতাবাসগুলো বিভিন্ন দেশে সেফহোম স্থাপনের পাশাপাশি একই সঙ্গে তাৎক্ষণিক সেবা প্রদানের লক্ষ্যে হটলাইন স্থাপন করেছে; যার মাধ্যমে একজন নির্যাতিত নারীকর্মি সঙ্গে সঙ্গে দূতাবাসের সহযোগিতা গ্রহণ করতে পারেন। এদিকে শেখ হাসিনার নতুন মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ ইমরান আহমেদ এমপি। দীর্ঘ ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথমবারের মতো প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন। রাজনীতিতে তিনি সজ্জন, মার্জিত ব্যক্তি হিসেবে সুপরিচিত। বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ ‘৮৬ সালে সিলেটের জৈন্তা-গোয়াইনঘাট-কোম্পানীগঞ্জ থেকে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আসছেন। ইমরান আহমেদ একজন বিনয়ী সফল রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী। সর্বোপরি সুশিক্ষিত এক আধুনিক চিন্তার সংস্কৃতিবান মানুষ, যার পারিবারিক ঐতিহ্য ও মর্যাদা দীর্ঘকালের। প্রথমবারের মতো প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর তিনি প্রবাসীদের কল্যাণে সব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার ঘোষণা দিয়েছেন। মন্ত্রিত্ব লাভের পর নিজ এলাকা গোয়াইনঘাট থানার ওসির পাঠানো উপঢৌকন ফেরত দিয়ে তিনি সততার এক মহৎ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন।
জনশক্তি বাজার সম্প্রসারণে এবং এই খাতে সুশাসন নিশ্চিত করার জন্য ইতিমধ্যে তিনি বেশ কিছু প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এই খাতের সেবা একেবারে উপজেলা পর্যন্ত নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। একই সঙ্গে অভিবাসন প্রক্রিয়াকে আরও নিরাপদ, সুশৃঙ্খল করা হবে। দুই থেকে তিন স্তরের যে মধ্যস্বত্বভোগীর অনুপ্রবেশ রয়েছে, তা কমিয়ে বাজার সম্প্রসারণে বায়রার সহযোগিতা নেওয়া হবে। অন্য যে কোনো সময়ের তুলনায় গত চার বছরে সবচেয়ে বেশি নারী শ্রমিক কাজের সন্ধানে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে গেছে। নারী শ্রমিকরা সবচেয়ে বেশি কাজ করে সৌদি আরব, লেবানন, জর্ডান, ওমান ও আরব আমিরাতে। সৌদি আরবে এ পর্যন্ত প্রায় তিন লাখ নারী শ্রমিক কাজ করার জন্য পাড়ি জমিয়েছে। প্রচুর নারীকর্মি বিদেশে তাদের শ্রম বিক্রি করে নিজ পরিবারে অর্থনৈতিক পরিবর্তন ঘটাতে সক্ষম হয়েছে। সামাজিকভাবে তারা সামনে এগিয়ে এসেছে। কিন্তু অনেক ঘটনাই নারী শ্রমিকদের কাজের সন্ধানে বিদেশ যাওয়াটা দুরূহ করে তুলছে। নানা প্রতিকূলতার কারণে মধ্যপ্রাচ্যে নারীকর্মি প্রেরণ বর্তমানে একটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই দুরূহতা কাটাতে হলে কনস্যুলার বা মিশন অফিসগুলোকে আরও দক্ষতা ও যোগ্যতা দেখাতে হবে। কর্মক্ষেত্রে যে নারীরা (যারা সমস্যার শিকার) বিপদাপন্ন অবশ্যই দূতাবাসগুলোকে তাদের প্রতি আরও বেশি সহানুভূতির হাত বাড়াতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা হলো, প্রতিটি শ্রমিকই বিদেশ যায় বেশি আয়ের প্রত্যাশা নিয়ে। কিন্তু অনিরাপদ অভিবাসন তাদের স্বপ্নকে দ্রুতই চুরমার করে নিঃস্ব করে দেয়। প্রকৃত বেতন নিয়ে কর্মিদের অভিযোগ রয়েছে বরাবরই।
এছাড়া অন্যান্য দেশের সঙ্গে সমন্বয় করে আমাদের প্রবাসী কর্মিদের বেতন নির্ধারণ করা দরকার। একই সঙ্গে প্রশিক্ষিত ও দক্ষ কর্মি প্রেরণেও আমাদের জোর দিতে হবে। অভিবাসন কূটনীতি জোরদার করে নিয়ন্ত্রিত অভিবাসন ব্যয় এবং নিরাপদ অভিবাসন নিশ্চিত করা হলে এই খাতের সুশাসন নিয়ে গর্ব করা যাবে। অন্যদিকে বলতে হয়, কর্মি প্রেরণে বিএমইটি তথা প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারি কর্তৃক অহেতুক প্রতিবন্ধকতার অভিযোগও রয়েছে। আবার কিছু কিছু দূতাবাসে রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোর কর্মি প্রেরণের চাহিদাপত্র জমা দেওয়ার পরও সত্যায়ন পেতে হয়রানির শিকার হতে হয়। অনেক সময় রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোকে চাহিদাপত্রের সত্যায়ন প্রদানে অনৈতিক সুবিধা প্রদানের অভিযোগও পাওয়া যায়। এতে শ্রমিক প্রেরণ মন্থর হয়ে পড়ে। যার ফলে এসব বাজার ভারত, শ্রীলংকা, ফিলিপাইনসহ বিভিন্ন কর্মি প্রেরণকারী দেশের হাতে চলে যাচ্ছে। তবে এও সত্য, বাংলাদেশের কিছু রিক্রুটিং এজেন্সি কর্মিদের কর্মঘণ্টা, বেতন ও থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা কোনোটাই তাদের বিবেচনায় আনে না। জনশক্তি প্রেরণে আমাদের অনেক সাফল্য দৃশ্যমান। যে সফলতার জন্য আমাদের পররাষ্ট্র ও প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয় অবশ্যই সাধুবাদ পাওয়ার দাবি রাখে। কিন্তু দূতাবাসগুলোকে আরও আন্তরিকতার সঙ্গে কর্মিদের স্বার্থ সংরক্ষণ বিবেচনায় কাজ করতে হবে। বায়রার সব সদস্যকে মানবিক মূল্যবোধের মধ্য দিয়ে বিদেশে নিরাপদ অভিবাসন নিশ্চিত করতে হবে। তাই প্রবাসীকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী অতীত ভুলে সামনে অভিবাসীদের কল্যাণে কাজ করার জন্য বারবার যে তাগিদ দিচ্ছেন, তার ফলপ্রসূ বাস্তবায়ন সংশ্নিষ্ট সবার প্রত্যাশা।
পরিশেষে বলতে চাই, দূতাবাসগুলোকে হতে হবে আরও শ্রমিকবান্ধব এবং কর্মী প্রেরণের প্রাণকেন্দ্র। একই সঙ্গে দূতাবাসগুলোকে আরও অভিবাসীবান্ধব হতে হবে। প্রয়োজনে দূতাবাসগুলোকে ২৪ ঘণ্টা প্রবাসীদের সেবা প্রদান করার উদ্যোগ নেওয়া উচিত।
বৈশ্বিক শ্রমবাজার সম্প্রসারণে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত কূটনৈতিক মিশনগুলোর ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একই সঙ্গে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও অপরিসীম। নতুন শ্রমবাজারের সন্ধান, নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কর্মিস্বার্থ রক্ষায় নেগোসিয়েশন, উপযুক্ত বেতন-ভাতা নিশ্চিতকরণ, ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ আদায়, অবৈধ নিয়োগদাতাদের কালো তালিকাভুক্তকরণ, রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোর চাহিদাপত্র অনুযায়ী নিয়োগদাতা সম্পর্কে খোঁজ নেওয়া, দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধিসহ প্রবাসে অবস্থানরত অভিবাসীদের সার্বিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা মিশনগুলোর কাজের প্রধান অংশ। আবার জনশক্তির বাজার সম্প্রসারণ, নতুন নতুন শ্রমবাজারে প্রবেশ ও ট্র্যাডিশনাল শ্রমবাজার ধরে রাখার ক্ষেত্রেও দূতাবাসগুলোর দায়দায়িত্ব অনেক। আমাদের অভ্যন্তরীণ শ্রমবাজার অবশ্যই সীমিত। প্রতি বছর গড়ে ২০ লাখ মানুষ শ্রমবাজারে প্রবেশ করছে। কিন্তু বিপুল এই শ্রমশক্তির কর্মসংস্থান কোথায়? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কৃষিতে শ্রমশক্তির বিরাট অংশ যুক্ত হতে পারলেও বাদবাকিদের জন্য তেমন সুব্যবস্থা নেই। সে ক্ষেত্রে আমাদের বড় একটি ভরসার জায়গা বৈদেশিক কর্মসংস্থান। দেখা যাচ্ছে, তৈরি পোশাক, চামড়া, ওষুধ শিল্প ইত্যাদি খাতের মতো বড় কোনো অর্থনৈতিক বিনিয়োগ ছাড়াই অভিবাসন খাত থেকে প্রতি বছর ১৩-১৪ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন করছে, যা আমাদের জিডিপিতে ৭.২৪ শতাংশ অবদান রাখছে।
একই সঙ্গে আশা করছি, আমাদের বড় শ্রমবাজার সংযুক্ত আরব আমিরাতে খুব দ্রুতই কর্মি প্রেরণের পথ উন্মুক্ত হবে। বর্তমান সরকার প্রবাসীদের কল্যাণে নানামুখী উদ্যোগ নিলেও এর সফলতা নির্ভর করবে মিশনগুলোর ওপরই। দূতাবাসগুলোর হওয়া উচিত শ্রমবাজারের প্রধান কেন্দ্র। আমাদের রপ্তানি বাজারের প্রধান অফিস। বিদেশে বাংলাদেশি কর্মিদের শ্রমবাজার সম্প্রসারিত করা এবং রপ্তানি বৃদ্ধির পাশাপাশি দেশে বিদেশি বিনিয়োগ কাঙ্খিত মাত্রায় উন্নীত করতে বাংলাদেশি মিশনগুলোকে নতুনভাবে সাজাতে হবে। দেশ ও জনগণের নিবেদিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে এগুলোকে গড়ে তোলার উদ্যোগ নিতে হবে।তাহলেই আরও নিরাপদে অধিক কর্মি প্রেরণে আমরা সক্ষমতা অর্জন করতে পারব, যা আমাদের টেকসই উন্নয়নকে এগিয়ে নেবে।
লেখক ঃ কলামিস্ট
raihan567@yahoo.com