বেগম রোকেয়া নারী সমাজের পথপ্রদর্শক

বেগম রোকেয়া নারী সমাজের পথপ্রদর্শক

অলোক আচার্য : রংপুর জেলার পায়রাবন্দ গ্রাম। ১৮৮০ সাল। নারীরা আজও জন্ম নেয় আবার তখনও জন্ম গ্রহণ করেছে। পার্থক্যটা বিশাল। আজ নারীরা ঘরের কাজ আর বাইরের কাজ নির্বিঘেœ করতে পারছে। মাতৃ দায়িত্ব থেকে শুরু করে মহাকাশে কাজ করে চলেছে। কঠোর পুরুষতান্ত্রিক সমাজে নারীরা যখন অপসংস্কৃতির আর নারী বিদ্বেষী নিয়মের বেড়াজালে নারীরা বন্দী ছিল তখন বেগম রোকেয়া জন্ম গ্রহণ করেন। বেগম রোকেয়া যে সময় জন্মগ্রহণ করেন সে সময় ইংরেজি শিক্ষা তো বহুদুরের কথা মেয়েদের শিক্ষা গ্রহণই ছিল নিষেধ। মেয়েদের কাজ ছিল সন্তান জন্মদান, লালনপালন ও গৃহ কাজকর্মের মধ্যে সীমাবদ্ধ। এমনকি নিজ পরিবারেও মতামত প্রকাশ করা ছিল কঠিন কাজ। বাইরের জগতে বের হওয়ার সুযোগও ছিল খুব কম। বড় হওয়ার সাথে সাথে তিনি আবিষ্কার  করলেন বাইরের পৃথিবীটা তার জন্য নয়। সেটা শুধুই পুরুষদের দখলে। তবে জ্ঞানের নেশা যাকে পেয়ে বসে তাকে থামানো যায় না। বেগম রোকেয়ার বড় ভাই ইব্রাহীম ছিলেন আধুনিক মনস্ক। তিনিই বেগম রোকেয়াকে বাংলা ও ইংরেজি শেখান। তবে তা পরিবারের অন্য সদস্যদের অন্তরালে।
শিক্ষার জন্য এমন ধ্যান ছিল বলেই তিনি নিজে জাগতে পেরেছেন হতে পেরেছেন নারী জাগরণের অগ্রদূত। তার হাত ধরেই নারী অধিকার আদায়ে পরবর্তীতে বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছেন। তবে শুধু নারী জাগরণের অগ্রদূত বললে বেগম রোকেয়ার ভূমিকাকে সঠিক মূল্যায়ন করা যায় না বলেই আমার মনে হয়। কারণ যে পরিবেশের মধ্যে থেকে তিনি ইংরেজি শিক্ষা লাভ করেছিলেন এবং পরবর্তীতে বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমে সাহিত্য রচনা করেছেন তাও বিবেচনায় আনতে হবে। যদিও তার অধিকাংশই নারী অধিকার আদায়ে সচেষ্ট ভূমিকা পালন করেছে কিন্তু পড়ার প্রতি যে তীব্র ঝোঁক তাও শেখায়। আবার পুরুষ জাতিকে চোখে আঙুল দিয়ে নারীর অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার কাজটিও ভালভাবেই করেছিলেন তিনি। বেগম রোকেয়ার সাহিত্য সাধনা প্রসারিত হয় বা সামনে আসার সুযোগ করার পিছনে যে ব্যাক্তির ভূমিকা রয়েছে তিনি বেগম রোকেয়ার স্বামী।

১৮৯৮ সালে ১৮ বছর বয়সে ভাগলপুরের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেনের সাথে তার বিয়ে হয়। বেগম রোকেয়ার সাথে স্বামী সাখাওয়াত হোসেন যুক্ত হয়ে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন নামেই পরবর্তীতে পরিচিত হন। নিজের বাড়িতে বেগম রোকেয়ার বড় ভাইয়ের সাহচর্যে জ্ঞান শিক্ষা লাভ করার পর স্বামীর সাহচর্যে তিনি সাহিত্য চর্চার পূর্ণ সুযোগ পান। কারণ সাখাওয়াত হোসেন ছিলেন একজন মুক্তমনা মানুষ। তিনি শুধুমাত্র তার স্ত্রীকে সাহিত্য চর্চার উদার পরিবেশ সৃষ্টি করেই বসে ছিলেন না, একটি স্কুল তৈরির জন্য অর্থ আলাদাও করে রাখেন। এতে তার বিদ্যা মনস্ক মনের পরিচয় পাওয়া যায়। যে পরিবেশ বেগম রোকেয়ার পরবর্তী জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতেও ভূমিকা রেখেছিল। আজ থেকে একশ বছরেরও বেশি সময় আগে বেগম রোকেয়া যে সাহসিকতা, উদার মনোভাব দেখিয়েছেন তা আজও নারীদের অগ্রযাত্রায় অনুসরণীয়, অনুকরণীয়। নারীরা যে কেবল ভোগের সামগ্রী নয় সে কথা তার রচনার মধ্যে দিয়ে তিনি বুঝিয়ে গেছেন। বেগম রোকেয়া তার চিন্তা চেতনা, তার ধ্যান ধারণায় তখনকার নারীদের চেয়ে ছিলেন অনেক অনেক এগিয়ে।
 
বেগম রোকেয়ার হাত ধরেই নারীরা ভাঙার সাহস পেয়েছিল বন্দী দেয়াল। নিজের অধিকার আদায়ের কথা বলার শক্তি যুগিয়েছিল বেগম রোকেয়ার রচনা। নারীরা যে পুরুষের দাসীমাত্র নয় অর্ধাঙ্গিনী সে কথা বুঝতে শিখেছিল তার হাত ধরেই। শত বছর আগে নারীদের ক্ষমতায়নের ও অধিকার প্রতিষ্ঠার যে স্বপ্ন বীজ তিনি বুনেছিলেন, আজ আমরা তার প্রতিফলন দেখতে পাই। বিশ্ব নেতৃত্বে ক্ষমতায়নে আজ নারীর জয়জয়কার। এটাই হয়। স্বপ্ন দেখান একজন। সেই স্বপ্ন হাজার চোখে স্বপ্ন হয়ে ঘুরতে ঘুরতে কোন এক সময় তা বাস্তবে রূপ নেয়। বেগম রোকেয়ার ক্ষেত্রেও সেটাই ঘটেছে। ঝঁষঃধহধ’ং উৎবধস বা সুলতানার স্বপ্ন বেগম রোকেয়ার এক অনন্য সৃষ্টি। নারীবাদি সাহিত্যে, নারী চেতনার জাগরণে এটি অন্যতম রচনা। এছাড়াও অবরোধবাসিনী, পদ্মরাগ, মতিচূর ইত্যাদি গ্রন্থেও তিনি তার চেতনার প্রকাশ ঘটিয়েছেন নিপুণভাবে।

বেগম রোকেয়ার স্বপ্ন থেকে প্রসারিত হওয়া নারী অধিকার বাস্তবায়নের আজ অনেকটা পথ এগিয়ে চলেছে। যদিও সেই ভোগবাদী মানসিকতা আজও অনেক ক্ষেত্রে বিদ্যমান তবুও নারী অধিকার আদায়ে প্রভূত অগ্রগতি সাধিত হয়েছে সেকথা বলাই যায়। নারীদের মুক্ত চিন্তার যে বীজ বেগম রোকেয়া তার কর্মে, তার সাধনায় বপন করে গেছেন আজ এবং আরও শত বছর পরেও যে নারী সমাজ তা বহন করবে তা নিশ্চিত বলা যায়। কারণ অধিকার আদায়ে অগ্রগতি হলেও আজও নারীদের উপর নৃশংসতার ঘটনা ঘটছে। তবে বেগম রোকেয়ার হাত ধরে যে পথে নারীরা এগিয়ে চলেছে সে পথে একদিন পুরোপুরি সাফল্য আসবেই।
লেখক ঃ সাংবাদিক ও কলাম লেখক
০১৭৩৭-০৪৪৯৪৬