বুট জোড়াকে চিরদিনের জন্য অবসরে পাঠালেন তোরেস

বুট জোড়াকে চিরদিনের জন্য অবসরে পাঠালেন তোরেস

বিদায় নেওয়ার মুহূর্তে তোরেস: ছবি-সংগৃহীত 

বল নিয়ে প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগে ক্ষিপ্র গতিতে আর ছুটে যাবেন না ফার্নান্দো তোরেস। জাতীয় দলের জার্সি এবং ইউরোপীয় ফুটবলকে আগেই বিদায় জানিয়েছেন, এবার চিরদিনের জন্য পেশাদার ফুটবল থেকে অবসর নিলেন ‘এল নিনো’। 


স্পেনের বিশ্বকাপজয়ী তোরেস পেশাদার ফুটবলের শেষ ম্যাচটি খেলে ফেলেছেন। কিন্তু বিদায়টা ভাল হয়নি ৩৫ বছর বয়সী স্ট্রাইকারের। হার দিয়ে বুট জোড়া চিরতরে তুলে রাখলেন তিনি। জাপান লিগে তার জাতীয় দলের সাবেক সতীর্থ আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ও ডেভিড ভিয়ার ক্লাব ভিসেল কোবের বিপক্ষে ৬-১ ব্যবধানে হেরেছে তোরেসের সাগান তোসু। 

অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে পেশাদার ফুটবল শুরু করেন তোরেস। ক্যারিয়ারের সেরা সময়টাও তিনি কাটিয়েছেন ওয়ান্দা মেত্রোপোলিতানোতে। এরপর ২০০৭-১১ মৌসুম কাটান লিভারপুলে। অ্যানফিল্ডেও ছিলেন ফর্মের তুঙ্গে। এরপর তরী ভেড়ান চেলসিতে। পরে ধারে চলে যান এসি মিলানে। নিজের সেরা ফর্মে ফেরার জন্য পুনরায় তিনি চলে আসেন অ্যাথলেটিকোতে। পরে ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে ইনিয়েস্তাদের দেখানো পথে হেঁটে নাম লেখান জাপানে জে লিগের ক্লাব সাগান তোসুতে। 

বিদায়ের দিনে তোরেসকে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন ইনিয়েস্তা। যেখানে লেখা, ‘এটা অসাধারণ এক ভ্রমণ। এটা আমাদের পৃথিবীর প্রতিটি কোণে নিয়ে গেছে।’ 

অবসরের সময় আবেগাপ্লুত তোরেস বলেন, ‘শেষ ম্যাচ খেলার জন্য আমি একটি আইকনিক মুহূর্ত খুঁজছিলাম এবং আমি মনে করি এটাই নিখুঁত সময়।’ 

তোরেস স্পেনের জার্সি গায়ে খেলেছেন ১১০ ম্যাচ। ২০১০ সালে ইনিয়েস্তা-জাভিদের সঙ্গে বিশ্বকাপ জিতেছেন তিনি। ২০০৮ ও ২০১০ সালে জিতেছন ব্যাক টু ব্যাক ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ। দুই ফাইনালেই গোল করেছেন তোরেস।