বিয়ের পরে নতুন সংসারে যেসব সমস্যা হতে পারে

বিয়ের পরে নতুন সংসারে যেসব সমস্যা হতে পারে

নতুন কিছু স্বপ্ন আর প্রত্যাশা নিয়ে শুরু হয় দুজন মানুষের নতুন করে পথচলা। বিয়ের পরে কেমন হবে নতুন সংসার, সেই ভাবনা পেয়ে বসে। সবাই চায় নিজের মতো করে সংসার, নিরুদ্বেগ, নিরুপদ্রব একটা জীবন।

কিন্তু বাস্তবতা সব সময় যে নিজের মনের মতো হবে এমনটাও নয়। নতুন সংসারে এমন অনেক সমস্যায় পড়তে হতে পারে যার সম্পর্কে আগে থেকে ধারণা ছিল না। চট করে সেসব সমস্যা নিজের মতো করে মিটিয়েও নেওয়া যায় না, কারণ প্রশ্ন ওঠে লোকে কী বলবে! কাজেই একটা মেনে নেওয়া-মানিয়ে নেওয়ার জায়গা তৈরি হয়, সেখান থেকে সম্পর্কে অসন্তোষ আসাটাও অস্বাভাবিক নয়-

ঘর ভাগাভাগি: দীর্ঘদিন নিজের ঘরে নিজের মতো থাকার পরে হঠাৎ করে অন্য কারও সঙ্গে ঘর ভাগ করে নিতে হলে একটু অস্বস্তি আপনার হতেই পারে। আপনার ঘুমের অভ্যাস, খাওয়ার রুটিন ও অন্যান্য স্বভাব না মিললে মুশকিল। এমনকি গোসল শেষে ভেজা তোয়ালে কোথায় রাখেন, এটা নিয়েও বাঁধতে পারে খিটিমিটি!

 

স্বাধীনতায় ছাড়: অবিবাহিত জীবন অনেকটাই নিজের খেয়ালখুশিতে কাটানো যায়। কিন্তু বিয়ের পরেও তেমনটা আশা করা বোকামি। যেহেতু আপনি কোনো একজনের সঙ্গে জীবন কাটানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাই তার পছন্দ-অপছন্দ, মতামতের বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে। বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে যান কিংবা শপিংয়ে, সঙ্গীকে অবশ্যই তা জানাতে হবে।

খরচে লাগাম: হতে পারে দুজনেই আপনারা কর্মজীবী। মাসশেষে দুজনেই ভালো অংকের টাকা ঘরে তোলেন। স্বামীর উপার্জনে যেমন স্ত্রীর অধিকার রয়েছে, ঠিক তেমনই স্ত্রীর উপার্জনে রয়েছে স্বামীর অধিকার। কিন্তু যদি এমন হয়, দুজনের মধ্যে একজন খরচ করতে বেশ ভালোবাসেন অপরদিকে অপরজন ভালোবাসেন হিসেব করে চলতে। তখন এ নিয়ে মতের অমিল দেখা দিতেই পারে।

শ্বশুর-শাশুড়ি: বাঙালি পরিবারে বিয়ের পর মেয়েরা সাধারণত শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গেই থাকতে শুরু করেন। নববিবাহিত বধূর পক্ষে সম্পূর্ণ নতুন কিছু মানুষের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া বেশ কঠিন। নতুন পরিবারের নিয়মকানুন, নতুন পরিবেশ, এ সবই সামলাতে হয় নতুন বউকে। কাজেই এই জায়গাটায় সাবধান হওয়ার দরকার রয়েছে।

যৌন সমস্যা: বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে একটি বড় জায়গা জুড়ে থাকে যৌনতা। তবে সেখানেও সমস্যা আসা অসম্ভব নয়। যৌনতায় দ্রুত একঘেয়েমি চলে এলে বা শারীরিক ঘনিষ্ঠতা থেকে তৃপ্তি না পেলে বিবাহিত জীবনের রং এক নিমেষে ফিকে হয়ে যেতে পারে। মন-মেজাজ, অভ্যাস, নিজের ভালো লাগা-খারাপ লাগা, সব মিলিয়ে যৌন জীবন যদি সুখের না হয়, আপনার বিবাহিত জীবনের উপর প্রশ্নচিহ্ন পড়তে বেশি সময় লাগবে