বিসিসির সড়কে সংযুক্ত হচ্ছে ফেস ডিটেক্টর ক্যামেরা

বিসিসির সড়কে সংযুক্ত হচ্ছে ফেস ডিটেক্টর ক্যামেরা

খরচ বাঁচাতে বরিশাল নগরের বৈদ্যুতিক পোস্টের সঙ্গে আধুনিক এলইডি লাইট (বাতি) সংযোজন করা হচ্ছে। একইসঙ্গে সংযুক্ত হচ্ছে ফেস ডিটেক্টর উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সিসি ক্যামেরা ও সাউন্ড সিস্টেম।


সম্প্রতি এ বিষয়ে চায়না সাউদার্ন পাওয়ার গ্রিড এনার্জি ইফিসিএন্সি অ্যান্ড ক্লিন এনার্জি কোম্পানির প্রতিনিধিদের সঙ্গে এ বিষয়ে বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) মেয়রসহ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিসিসি সূত্রে জানা গেছে, ওই কোম্পানির হি জিং ও এ্যালেন জিন নামের দু’জন প্রতিনিধির কাছে এক অভিনব প্রেজেন্টেশনে বরিশালের রাতের দৃশ্য তুলে ধরা হয়েছে। খুব দ্রুত কোম্পানিটির সঙ্গে ১০ বছরের চুক্তিতে সই করতে যাচ্ছে বিসিসি।

সিটি করপোরেশেনের কর্মকর্তারা জানান, কোম্পানির প্রতিনিধির সঙ্গে আলোচনার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নগরের প্রতিটি লাইট পোস্টে স্থাপন করা হবে অত্যাধুনিক এলইডি লাইট ও এর সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে উন্নত মানের ফেস ডিটেক্টর হাই রেজুলেশন সিসি ক্যামেরা, মাইক ও সাউন্ড সিস্টেম। 

এ আই প্রযুক্তি সম্পন্ন এসব ডিভাইজগুলো নিয়ন্ত্রিত হবে সফটওয়ারের মাধ্যমে।  খুদে বার্তার মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে যেকোনো ধরনের যান্ত্রিক ত্রুটি আগাম জানিয়ে দেবে এই সফটওয়ার। যেহেতু প্রতিটি লাইটের সঙ্গে সিসি ক্যামেরা ও মাইক থাকছে, এর ফলে নগরবাসীকে যেকোনো ম্যাসেজ জানানো যাবে অতিদ্রুত।

অপরদিকে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পরপরই বিসিসি ১০ বছরের চুক্তিতে সই করতে যাচ্ছে চায়নার কোম্পানির সঙ্গে।  আর এই চুক্তি বাস্তবায়নের ফলে ১০ বছর চায়না কোম্পানি রক্ষণাবেক্ষণ করায় বিসিসির নিজস্ব কোনো অর্থ খরচ হবে না। একইসঙ্গে প্রতিবছর যে পরিমাণ অর্থ সড়ক বাতি রক্ষণাবেক্ষণ খাতে ব্যয় করতো তার আর প্রয়োজন হবে না।

এতে করে ১০ বছরে বিসিসির প্রায় ১৫ কোটি টাকা সাশ্রয় হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছেন মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ।

এর মাধ্যমে শহরের নিরাপত্তা হবে আরও শক্তিশালী এবং জনগণ নির্বিঘ্নে দিনরাত নগরে বিচরণ করতে পারবে বলেও জানান তিনি।