বিশ্বকাপে যেখানে ওয়ার্নারই প্রথম

বিশ্বকাপে যেখানে ওয়ার্নারই প্রথম

ক্যারিয়ারের খারাপ সময়টা পার করেছেন কিছুদিন আগেই। বল টেম্পারিং ইস্যুতে স্টিভেন স্মিথের সঙ্গে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন এক বছরের জন্য। সে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে অবশ্য কোনো ম্যাচ না খেলা সত্ত্বেও তাকে বিশ্বকাপ দলে সুযোগ দেয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)।

অসি ক্রিকেট বোর্ডের সে আস্থার প্রতিদানও অবশ্য দিচ্ছেন ডেভিড ওয়ার্নার, ব্যাট হাতে এবারের বিশ্বকাপে দারুণ ফর্মে আছেন তিনি। ৬ ম্যাচে ৪৪৭ রান করে এই মুহূর্তে বিশ্বকাপের রান সংগ্রাহকের তালিকায় সবার উপরে আছেন এই অসি ওপেনার। গতকাল (বুধবার) বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামে অস্ট্রেলিয়া।


যে ম্যাচে ৫টি ছক্কা ও ১৪ চারে ১৪৭ বলে ১৬৬ রানের অসাধারণ এক ইনিংস খেলেন ওয়ার্নার। এই ইনিংসের মাধ্যমে নতুন এক রেকর্ডও গড়েন তিনি। ইতিহাসের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপে দু’বার ১৫০ বা তার বেশি রান করার কৃতিত্ব দেখানো প্রথম ক্রিকেটার ওয়ার্নার।

এর আগে ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১৩৩ বলে ১৭৮ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। যা এখনও পর্যন্ত বিশ্বকাপে কোনো অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংস। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ছয়টি ভিন্ন প্রতিপক্ষের বিপক্ষে দেড়শ বা তার বেশি রানের ইনিংস খেলা প্রথম ক্রিকেটারও তিনি।

এই ম্যাচে ওয়ার্নারের রেকর্ড আছে আরও। বুধবার বাংলাদেশের বিপক্ষে করা সেঞ্চুরিটি ওয়ার্নারের ক্যারিয়ারের ১৬তম সেঞ্চুরি। যা করতে ওয়ার্নারের লেগেছে বিরাট কোহলির সমান ১১০ ইনিংস। সবচেয়ে দ্রুত ১৬ সেঞ্চুরি করার রেকর্ড আছে দক্ষিণ আফ্রিকান হাশিম আমলার দখলে, তিনি এ পরিমাণ সেঞ্চুরি করতে খেলেছেন ৯৪ ইনিংস। যৌথভাবে দ্বিতীয় অবস্থানে আছেন বিরাট ও ওয়ার্নার।