বিজয় উৎসব ‘পরাজয়’ ঢাকতে: ফখরুল

বিজয় উৎসব ‘পরাজয়’ ঢাকতে: ফখরুল

নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ের পর আওয়ামী লীগের কোনো কর্মসূচি না থাকায় বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছিলেন, ‘ভোট ডাকাতি’র লজ্জায় তারা আনন্দ করতে পারছে না; জয়ের উৎসব আয়োজনের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বললেন, ‘ভোট ডাকাতি’ আড়াল করতে ক্ষমতাসীনদের এই কর্মসূচি।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ জয় নিয়ে টানা তৃতীয়বার সরকার গঠন করেছে। তবে বিএনপির অভিযোগ, ‘নজিরবিহীন ভোট ডাকাতি’ করে জিতেছে আওয়ামী লীগ।

ভোটের ১৯ দিন পর বিজয় উদযাপনে শনিবার বিকালে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ জনসভা করতে যাচ্ছে।

এদিন সকালে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউ রহমানের কবরে ফুল দেওয়ার পর শেরেবাংলা নগরে চন্দ্রিমা উদ্যানে সাংবাদিকদের প্রশ্নে আওয়ামী লীগের বিজয় উৎসব নিয়ে কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব ফখরুল।

তিনি বলেন, “৩০ ডিসেম্বর তো গণতন্ত্রের পরাজয় হয়েছে, আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় পরাজয় হয়েছে। কারণ তারা (আওয়ামী লীগ) জনগণ থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

“এই উৎসব হচ্ছে তাদের (আওয়ামী লীগ) যে পরাজয়, তা ঢেকে দেওয়ার জন্য, মানুষের দৃষ্টিটাকে অন্যদিকে সরানোর জন্য।”

ফখরুল বলেন, “গণতন্ত্রের প্রতি আওয়ামী লীগের কোনো শ্রদ্ধা নেই। গণতন্ত্র তারা মুখে বলে কিন্তু বিশ্বাস করে না। অতীতে ১৯৭৫ সালে এক দলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিলো সমস্ত রাজনৈতিক দলকে নিযিদ্ধ করে দিয়ে, মানুষের বাক স্বাধীনতাকে হরণ করে নিয়ে।”

দলের প্রতিষ্ঠাতাকে স্মরণ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানই বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়ে মানুষের বাক স্বাধীনতা ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।

“জিয়াউর রহমানের জন্মদিনে শপথ নিয়েছি আমরা গণতন্ত্রকে মুক্ত করব, সর্বোপরি যিনি এই স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্রের পতাকা তুলে নিয়ে আছে কারারুদ্ধ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে, আমাদের নেতা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এসে আমরা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করব।”

ঐক্যফ্রন্টে ‘টানাপোড়ন নেই’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের গত বৃহস্পতিবারের বৈঠকে বিএনপির যোগ না দেওয়া অনেক প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। কেননা তার কয়েকদিন আগেই ফ্রন্টের শীর্ষনেতা কামাল হোসেন বলেছিলেন, নির্বাচনে জামায়াত নেতাদের ধানের শীষে প্রার্থী দেওয়ার কথা আগে জানায়নি বিএনপি।  

ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির কোনো টানাপড়েন সৃষ্টি হয়েছে কি না- প্রশ্ন করা হলে ফখরুল বলেন, “বাংলাদেশের রাজনীতিতে এই ধরনের কথা সবসময় আসে, আর আপনাদের বিভিন্ন রকম চমৎকার চমৎকার সমস্ত স্টোরির মধ্য দিয়ে বিভিন্ন রকমের স্টোরি আসে।

“আমাদের মধ্যে কোনো টানাপড়েন নেই। ঐক্যফ্রন্ট আছে, ২০ দলীয় জোট আছে।”

বিএনপির ভেতরে কোনো টানাপড়েন আছে কি না- প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “কোনো টানাপড়েন নাই। বিএনপি ইউনাউটেড অ্যাজ ইট ইজ।”