বিউটি ধর্ষণ ও হত্যা এসআই জাকিরের শাস্তির সুপারিশ

বিউটি ধর্ষণ ও হত্যা এসআই জাকিরের শাস্তির সুপারিশ

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের বিউটি আক্তার ধর্ষণ ও হত্যা মামলার তদন্তে দায়িত্বে আবহেলার অভিযোগে পুলিশের এসআই জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তির সুপারিশ করেছে পুলিশের একটি তদন্ত কমিটি।  মঙ্গলবার পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরার হাতে এ ব্যাপারে প্রতিবেদন দাখিল করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আ স ম শামছুর রহমান ভূঞা।

শাস্তির সুপারিশশামছুর রহমান ভূঞা বলেন, বিউটি ধর্ষণ ও হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থাকাকালে দায়িত্বে অবহেলার সুস্পষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেছে এসআই জাকিরের বিরুদ্ধে। বিশেষ করে যেদিন ঘটনা ঘটে এর আট দিন পর ভিকটিমের মেডিকেল করানো হয়। এর মাঝে সে ভিকটিমের পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ করেনি। আসামিকেও ধরতে ব্যর্থ হয়। এই ঘটনায় সালিশেরও উদ্যোগ হয়। তারপরও কিছু করতে না পারা শুধু কর্তব্যে অবহেলা নয়, বরং তার দক্ষতারও অভাব রয়েছে। যথাসময়ে মেডিকেল করানো হলে এবং আসামিকে গ্রেফতার করা হলে হয়ত হত্যাকারী বিউটিকে হত্যা করতে পারত না বলে শামছুর রহমানের ভাষ্য। তিনি আরও জানান, শায়েস্তাগঞ্জ থানার ওসি মো. আনিসুর রহমানকে আরও দায়িত্বশীল হওয়ার জন্য মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। গত ২১ জানুয়ারি শায়েস্তাগঞ্জের ব্রাহ্মণডোরা গ্রামের দিনমজুর সায়েদ আলীর মেয়ে বিউটি আক্তারকে (১৪) বাড়ি থেকে অপহরণ করা হয়। এক মাস তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করার অভিযোগ ওঠে বাবুল মিয়ার বিরুদ্ধে। এরপর বিউটিকে কৌশলে তাদের বাড়ি রেখে যায়। এ ঘটনায় গত ১ মার্চ বিউটির বাবা সায়েদ আলী বাদী হয়ে বাবুল ও তার মা স্থানীয় ইউপি মে¤॥^ার কলমচানের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা করেন।