বান্দরবানে আ’লীগ সমর্থককে গুলি করে হত্যা

বান্দরবানে আ’লীগ সমর্থককে গুলি করে হত্যা

বান্দরবানে ক্য চিং থোয়াই মারমা (২৭) নামে এক আওয়ামী লীগ সমর্থককে অপহরণের পর গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার (১৯ মে) রাত 2টার দিকে সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নের ৪ bম্বর রাবার বাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ক্য চিং থোয়াই রাজবিলা ইউনিয়নের ৪ নম্বর রাবার বাগান এলাকার তা উ থোয়াই মারমার ছেলে এবং রাজবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সমর্থক। তার ভাই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার গভীর রাতে ক্য চিং থোয়াইকে বাসা থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় একদল দুর্বৃত্ত। পরে তাকে রাবার বাগানের পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে। রোববার (১৯ মে) ভোরে বা‌ড়ি থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে ৫ নম্বর রাবার বাগান এলাকায় তার মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে।

রাজবিলার ইউপি চেয়ারম্যান কে অং প্রু মারমা জানান, ওই এলাকায় একের পর এক হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ক্য চিং থোয়াই এর বুকে ও পিঠে পাঁচটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি।

এদিকে আওয়ামী লীগ ঘটনার পেছনে জনসংহতি সমিতিকে দায়ী করলেও জনসংহতি সমিতি এখনও কোনো বিবৃতি দেয়নি।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও‌সি-তদন্ত) মো. এনামুল হক ভূঁঞা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রাজবিলায় এক ব্যক্তিকে অপহরণের পর গু‌লি করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে পু‌লিশ পাঠানো হয়েছে ঘটনা তদন্তে কাজ করছে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গত ৯ মে একই এলাকায় জয় মনি তঞ্চঙ্গ্যা নামে এক জনসংহতি সমিতির সমর্থককে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। এর আগে ৭ মে বিনয় তঞ্চঙ্গ্যা নামে আরও এক জনসংহতি সমিতির কর্মীকে গুলি করে হত্যা করে। একই ঘটনায় ফোলাধন তঞ্চঙ্গ্যা নামে আরেক কর্মীকে অপহরণ করা হয়। ঘটনার ১২ দিন পার হলেও এখনো তার কোনোও খোঁজ পাওয়া মেলেনি।