বাঘের থাবায় আবুধাবি বধ

বাঘের থাবায় আবুধাবি বধ

মাঠে ব্যাট হাতে আন্দ্রে ফ্লেচার থাকা মানেই বাংলা টাইগার্সের স্কোরবোর্ডে রানের ঝড়। মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) রাতে টিম আবুধাবির সঙ্গে ম্যাচে তার চেনা ঝড় যেন টর্নেডোর রূপ পেলো।


মঈন আলী, মার্চেন্ট ডি ল্যাঞ্জ, হ্যারি গার্নিদের পাড়ার বোলার বানিয়ে মাত্র ১৬ বলের ইনিংসে ফ্লেচার হাঁকালেন পাঁচটি ছয় আর আরটি চার! ইনিংসের চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ফার্নান্ডোর তালুবন্দি হওয়ার আগে তার সংগ্রহ ৪২ রান।

কম যাননি রাইলি রুশো ও ফ্লেচার সাজঘরে ফেরার পর মাঠে নামা কলিন ইনগ্রাম। রুশোর ২১ বলে ৪৪ আর ইনগ্রামের ১৪ বলে ২৩ রানে ভর করে সুপার সিক্সে নিজেদের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক টিম আবুধাবিকে ১৩০ রানের বড় টার্গেট দেয় টাইগাররা।  

টার্গেট তাড়া করতে নেমে আবুধাবির দুই ওপেনার আভিশকা ফার্নান্ডো ও লুক রাইট মারকুটে ইনিংস শুরু করলেও বেশিদূর যেতে পারেননি। ম্যাচের তৃতীয় ওভারে ডেভিড উইসের বলে কায়েস আহমেদকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন রাইট।

মাঝে মঈন আলী, ওয়েনি ম্যাডসন, লুইস গ্রিগরি ও অ্যালেক্স ডেভিস ব্যাট হাতে নামলেও সুবিধা করতে পারেননি কেউই। কায়েস আহমেদ ও থিসারা পেরেরার তোপের মুখে পড়ে একে একে সাজঘরে ফিরতে হয়েছে তাদের।

‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ চিৎকারে স্টেডিয়াম মুখরিত করে তোলেন প্রবাসী বাঙালিরা। 
উইকেটের একপ্রান্তে সঙ্গীদের আসা-যাওয়া চললেও অপর প্রান্তে ব্যাট হাতে উইকেট আগলে রেখেছিলেন শ্রীলংকান ব্যাটসম্যান আভিশকা ফার্নান্ডো। কায়েসের বলে পেরেরাকে ক্যাচ দেওয়ার আগে ফার্নান্ডো ২১ বলে তুলে নেন ৫১ রান। এর মধ্যে কোনো চার না থাকলেও ছয় ছিল পাঁচটি।

ইনিংসের অষ্টম ওভারে আভিশকা সাজঘরে ফিরলে টাইগারদের আবুধাবি বধ অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায়। বাকি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা। ডেভিড উইসের করা ম্যাচের শেষ বলটি হেইডেন ওয়ালশ মিস করার সঙ্গে সঙ্গে সেই অপেক্ষার পালাও শেষ হয়।

২৭ রানে টিম আবুধাবিকে হারিয়ে সহজ জয় পায় ‘আবুধাবি টি-১০ ক্রিকেট লিগে’ বাংলাদেশের একমাত্র দল বাংলা টাইগার্স। সঙ্গে সঙ্গে পুরো শেখ জায়েদ স্টেডিয়াম মেতে ওঠে বাঘের গর্জনে। ‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ চিৎকারে স্টেডিয়াম মুখরিত করে তোলেন প্রবাসী বাঙালিরা।