বাঘাইছড়ির ঘটনার পর কঠোর হলো ইসি

বাঘাইছড়ির ঘটনার পর কঠোর হলো ইসি

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপের ভোটে এসে কঠোর অবস্থানের কথা জানালেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। এক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ ২৪ উপজেলায় অতিরিক্ত বিজিবি ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

১৮ মার্চ দ্বিতীয় ধাপের ভোটের ফল নিয়ে কর্মকর্তারা ফেরার পথে রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে বার্স্ট ফায়ারের মুখে পড়ার পর এমন অবস্থানে গেল নির্বাচন কমিশন। সে ঘটনায় ৮ জন নিহত হন। এছাড়া আহত ২৪ জন ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালসহ অন্যান্য হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ইসি সচিব শনিবার (২৩ মার্চ) বিকেলে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারের আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরে জানান, আমরা কঠোর অবস্থানে রয়েছি। যেসব উপজেলায় সমস্যা আছে বলে মনে হয়েছে, সেখানে আমরা বিজিবি ও র‌্যাবের অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন করেছি। এছাড়া নিয়োগ করা হয়েছে অতিরিক্ত নির্বাহী হাকিমও।

তিনি বলেন, প্রথমে ১২৭ উপজেলায় ভোটের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছিল। ৪টি উপজেলায় ভোট পিছিয়েছে। চট্টগ্রামের লোহাগড়া ও কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাচন আদালতের আদেশে স্থগিত করা হয়েছে। আর নরসিংদী সদর ও কক্সবাজার সদরের নির্বাচনের ৩১ মার্চ চতু্র্থ ধাপের ভোটে নেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে ৬ উপজেলার সবগুলো পদে প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় রোববার (২৪ মার্চ) ১১৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সচিব বলেন, আইন অমান্য করে প্রচারে অংশ না নেওয়ার জন্য এ পর্যন্ত তিনজন সংসদ সসদস্যকে সতর্ক করে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তারাও আইনে প্রতি সম্মান দেখিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই নির্বাচিত এলাকা ত্যাগ করেছেন। তাই অন্য কোনো অ্যাকশনে আমাদের যেতে হয়নি।

হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, নয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও তিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইএনও) আমরা অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যাহার করেছি। এছাড়াও বেশ কিছু ওসি এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়েছি।

সচিব বলেন, ইতিমধ্যে নির্বাচনী এলাকায় সব উপকরণ পৌঁছে গেছে। তৃতীয় ধাপে রংপুর সদর, গোপালগঞ্জ সদর, মানিকগঞ্জ সদর ও মেহেরপুর সদরে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোটগ্রহণ করা হবে।

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৩ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

২৫ জেলার ১১৭ উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩৪০ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫৮৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩৯৯জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নির্বাচনে ৯ হাজার ২৯৮টি ভোট কেন্দ্রে ১ কোটি ১৮ লাখ ৮৭ হাজার ৭৫১ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাচ্ছেন।